সাহেদের বিরুদ্ধে দুদকে মামলা

আপডেট: জুলাই ২২, ২০২০, ১০:৫৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদসহ চার জনের বিরুদ্ধে এনআরবি ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বুধবার (২২ জুলাই) দুদকের সহকারী পরিচালক মো. সিরাজুল হক বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।
দুদকের পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য জানান, ঢাকার সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।
মামলার আসামিরা হলেন— রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইব্রাহিম খলিল, এনআরবি ব্যাংকের এসই ব্যাংকিংয়ের সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার মো. সোহানুর রহমান ও ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়াহিদ বিন আহমেদ।
দুদক সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতাল পরিচালনার পূর্ব অভিজ্ঞতা, অন্য ব্যাংকের লেনদেন বা বিনিয়োগের তথ্য যাচাই, ঋণ নিরাপত্তার পর্যাপ্ত জামানত সংগ্রহ না করেই সাহেদকে দুই দফায় ২ কোটি ৪ লাখ ৯০ হাজার ৯৮৭ টাকা ঋণ দেয় ব্যাংকটি। ঋণ নেওয়ার পর এই টাকা আর পরিশোধ করেননি সাহেদ। টাকা পরিশোধ না করায় সুদ এবং অন্যান্য চার্জসহ সাহেদের কাছে ব্যাংকের পাওনা হয়েছে ২ কোটি ৭০ লাখ ৭০ ২১৪ টাকা। তবে ঋণ মঞ্জুরির শর্তানুযায়ী এক কোটি টাকা এফডিআর করেছিলেন তিনি। দুই টার্মে দুই কোটি টাকা ঋণ পাবেন তা নিশ্চিত হওয়ার পরই এই এফডিআর করেন। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ টাকা উদ্ধার করতে না পারায় তার এফডিআর থেকে এক কোটি ১৮ লাখ ৮৯ হাজার ৩৪৯ টাকা সমন্বয় করে। বর্তমানে সাহেদের কাছে ব্যাংটির পাওনা আছে এক কোটি ৫১ লাখ ৮১ হাজার ৩৬৬ টাকা।
দুদক জানায়, চার আসামি পরস্পর যোগসাজশে এই টাকা আত্মসাত করেছেন বলে অনুসন্ধানে উঠে এসেছে। টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত ৬ জুলাই র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। এই সময় পরীক্ষা ছাড়াই করোনার সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা ও অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়। এরপর ৭ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশে রিজেন্ট হাসপাতাল ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয় র‌্যাব। রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে ওই দিনই উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা হয়। এরপর থেকে সাহেদ পলাতক ছিলেন। গত ১৫ জুলাই ভোরে ভারতে পালানোর সময় সাতক্ষীরা থেকে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।
হাসপাতালে অভিযানে পর থেকে সাহেদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মাধ্যমে দুদকে অভিযোগ আসতে শুরু করে। এসব অভিযোগ আমলে নিযে অনুসন্ধান শুরু করে সংস্থাটি। কমিশনের উপপরিচালক মো. আবু বকর সিদ্দিকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি অনুসন্ধান দল গঠন করা হয়। এ দলের অন্য সদস্যরা হলেন— মো.নেয়ামুল হাসান গাজী ও শেখ মো. গোলাম মাওলা।
তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ