সিংড়ায় প্রতীক বরাদ্দের পরেই গণসংযোগ ও ভোট প্রার্থনায় প্রার্থীরা

আপডেট: ডিসেম্বর ৮, ২০২১, ৯:৫২ অপরাহ্ণ

নাটোর প্রতিনিধি:


আগামী ২৬ ডিসেম্বর ৪র্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। এ নির্বাচন উপলক্ষে প্রতীক বরাদ্দের পরে গণসংযোগ ও ভোট প্রার্থনা শুরু করেছে বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রার্থীরা। নাটোরের সিংড়া উপজেলার চামারী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী এনামুল হক চৌগ্রাম ইউনিয়নের আ.লীগ মনোনীত পার্থী জাহেদুল ইসলাম ভোলা, স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী-লীগনেতা আলতাব হোসেন, হাতিয়ানদহ ইউনিয়নে আওয়ামী-লীগনেতা চঞ্চল হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মাববুব হোসেন সহ অনেকেই গণসংযোগ ও মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা করেতে দেখা গেছে। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৭টা হতে রাত ১০টা পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন স্থানে শত শত মোটরসাইকেল ও ভ্যানগাড়িতে এবং যার যার সমর্থক ও হাজার হাজার নেতাকর্মী নিয়ে পার্থীরা এ সব গণসংযোগ করেন।
জানা যায়, বিগত দিনে অনেক চেয়ারম্যানরাই ইউনিয়নবাসীর প্রত্যাশিত উন্নয়ন করতে ব্যর্থ হওয়ায় এবং তৃনমূল পর্যায়ের ভোটাররা ক্ষুব্ধ থাকায় তাই এবার অনেক চলমান চেয়ারম্যানরা নৌকার টিকিট পাননি। তবে তারা স্বতন্ত্র পার্থী হয়ে ভোট করছেন।

অপরদিকে যারা নৌকার টিকিট পেয়েছেন তারা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের সাথে তাল মিলিয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রত্যাশিত উন্নয়ন করতে ইউনিয়নের সকল জনগণের মূল্যবান ভোট প্রার্থনা করছেন।

প্রতীক বরাদ্দের পর সিংড়া উপজেলার ১০নং চৌগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলতাফ হোসেন জিন্নার পক্ষে প্রচারনা চালাতে গিয়ে প্রার্থীর ভাতিজা মাকসুদুর রহমান মামুনকে মারপিটের অভিযোগ উঠেছে নৌকার প্রার্থী জাহেদুল ইসলাম ভোলার সমর্থকদের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার বিকেলে ছোট চৌগ্রাম বাজারে এই মারপিট করা হয়।
জনগণের চাহিদা পূরণে দলীয় প্রার্থী, স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং বিদ্রোহী প্রার্থীরা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। কোথাও কোথাও স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং বিদ্রোহী প্রার্থীর উপর বিভিন্ন ভাবে হুমকি মারপিটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু পরিবেশে ভোট দেয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।

এবিষয়ে চৌগ্রাম ইউনিয়নের দায়িত্ব প্রাপ্ত রিটার্নি অফিসার আতিকুল ইসলাম এবং সিংড়া থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি নূরে আলম জানান, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সিংড়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার সাইফুল আলম জানান, উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নে মোট ৫২জন চেয়ারম্যান পদে, সংরক্ষিত (নারী) ওয়ার্ডে ১০৪ জন এবং সাধারন (পুরুষ) ওয়ার্ডে ৪০২ জন পার্থীরা প্রতিদ্বন্দিতা করবেন। এ উপজেলা মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৩৩ হাজার ৭শ ২৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১লক্ষ, ৩৩ হাজার ৩শ ২৪ জন এবং নারী ভোট ভোটার১ লাখ ৩০ হাজার ৪শ জন।