সিংড়ায় প্রতীক বরাদ্দের পরই চৌগ্রাম ইউপির স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভাতিজাকে মারপিটের অভিযোগ

আপডেট: ডিসেম্বর ৭, ২০২১, ৯:৫৭ অপরাহ্ণ

নাটোর প্রতিনিধি:


প্রতীক বরাদ্দের পর সিংড়া উপজেলার ১০নং চৌগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলতাফ হোসেন জিন্নার পক্ষে প্রচারনা চালাতে গিয়ে প্রার্থীর ভাতিজা মাকসুদুর রহমান মামুনকে মারপিটের অভিযোগ উঠেছে নৌকার প্রার্থী জাহেদুল ইসলাম ভোলার সমর্থকদের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) বিকেলে ছোট চৌগ্রাম বাজারে এই মারপিট করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা ও ভুক্তভোগি মামুন জানান, মঙ্গলবার দুপুরে রিটার্নিং অফিসার প্রতীক বরাদ্দ করেন। এতে ১০নং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আলতাফ হোসেন জিন্না আনারস প্রাতিক পান। প্রতীক পাওয়ার পর তার পক্ষে ছোট চৌগ্রাম বাজারে নির্বাচনী প্রচারনা চালাতে যান প্রার্থীর ভাতিজা মাকসুদুর রহমান মামুন।

এসময় বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল নিয়ে নৌকার প্রার্থী জাহেদুল ইসলাম ভোলার ভাগিনা কান্তনগর গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে জয়, একই গ্রামের জিল্লুর রহমানের ছেলে শিমুল, কয়রাবাড়ি গ্রামের মৃত সানাই এর ছেলে মিঠুন, কান্তনগর গ্রামের বাজেদ আলীর ছেলে মাসুদ, চৌগ্রামের আব্দুল ওহাবের ছেলে আসিফ নেওয়াজ আগুন, আবু জাহেদের ছেলে জিয়া এবং আবু বক্করের ছেলে সাগর বিদ্রোহী প্রার্থী আলতাফ হোসেনের ভাতিজা মামুনকে মারপিট করে। পরবর্তীতে নির্বাচনী প্রচারনায় বের হলে তাকে প্রাণ নাশের হুমকিও দেয়া হয়।

স্বতন্ত্র প্রার্থী আলতাফ হোসেন জিন্না জানান, নির্বাচনী পরিবেশ অস্থিতিশীল করার জন্য নৌকার প্রার্থী বিভিন্ন বাহিনী তৈরী করে আমার কর্মী সমর্থকদের হুমকি এবং মারপিট করছে। একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অস্থিতিশীল করার চেস্টা করছে নৌকার প্রার্থী জাহেদুল ইসলাম ভোলা। বিষয়টি আমি ইউএনও, রির্টানিং অফিসার এবং ওসি মহোদয়কে জানিয়েছি। বুধবার লিখিত অভিযোগ দেওয়া হবে।

এবিষয়ে জানতে নৌকা মনোননিত প্রার্থী জাহেদুল ইসলাম ভোলার ফোন নম্বরে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

এবিষয়ে চৌগ্রাম ইউনিয়নের দায়িত্ব প্রাপ্ত রিটার্নি অফিসার আতিকুল ইসলাম এবং সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আলম জানান, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ