সীতাকুণ্ড বিস্ফোরণ :আধা কিলোমিটার দূর থেকে ভিডিও করেও দগ্ধ

আপডেট: জুন ৫, ২০২২, ৯:০৮ অপরাহ্ণ

সীতাকুণ্ড বিস্ফোরণে দগ্ধদের আনা হচ্ছে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে

সোনার দেশ ডেস্ক:


চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডের সময় বিস্ফোরণে দগ্ধ আরও তিন জনকে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে নিয়ে আসা হয়েছে।

রোববার (৫ জুন) বিকেলে তাদেরকে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়।
শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে আনা দগ্ধরা হলেন- মো. আমির হোসেন (২২), মো ফারুক (৪৫) ও রাসেল (৩৯)। এদের মধ্যে ফারুক ও রাসেল ঘটনাস্থল থেকে আধা কিলোমিটার দূরে দাঁড়িয়ে ঘটনার ভিডিও করার সময় বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়।

আমির হোসেনের সহকর্মী সেলিম রেজা জানান, আমিরের বাড়ি মাগুরার শ্রীপুর উপজেলায়। কনটেইনার ডিপোতে শ্রমিকের কাজ করে সে। গত রাত ১১টায় তাদের ডিউটি করার কথা ছিল। এর আগে সে মোবাইলের টাকা লোড করতে যাচ্ছিল। তখনই বিস্ফোরণে দগ্ধ হয় ।

রাসেলের ভাই মো রবিউল জানান, রাসেল ও ফারুক নারায়ণগঞ্জ প্রাইম কালচার নামে একটি প্রতিষ্ঠানের কনটেইনার মালবাহী গাড়ি চালক। শনিবার তারা মোট পাঁচটি কনটেইনার নিয়ে ওই ডিপোতে গিয়েছিলেন।

আগুন লাগার পর তারা সেখান থেকে আনুমানিক আধা কিলোমিটার দূরে দাঁড়িয়ে অগ্নিকাণ্ডের ভিডিও করছিলেন। তখন বিস্ফোরণ হলে তারা ছিটকে পড়েন। সেখান থেকে বের হতেও পারছিলেন না তারা। তখন ডিপোর বাউন্ডারির দেওয়াল ভেঙে তাদেরকে বের করা হয়। পরে নিয়ে যাওয়া হয় ক্লিনিকে।

শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটের আবাসিক সার্জন ডা. এস. এম. আইউব হোসেন বলেন, বিকেলে আরো তিন জনকে নিয়ে আসা হয়েছে। তাদেরকে ভর্তি রাখা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট সাত জনকে ভর্তি করা হলো।

এ রিপোর্ট লেখা সময় সীতাকুণ্ডে ট্রাজেডির ঘটনায় পুরাতন বিমানবন্দর থেকে অ্যাম্বুলেন্স যোগে আরও সাত জন দগ্ধকে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে নিয়ে আসা হয়েছে। দায়িত্বরত কর্মকর্তারা জানান, তারা ভর্তির পরে জানা যাবে মোট কতজন রোগী এসেছেন।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন