সুনিল গোমেজ হত্যাকান্ডে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে নব্য জেএমবির কমান্ডার

আপডেট: এপ্রিল ১০, ২০১৭, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস



নাটোরের বড়াইগ্রামের খ্রিষ্টান মুদি ব্যবসায়ী সুনিল গোমেজ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে নব্য জেএমবির উত্তরাঞ্জলের সামরিক কমান্ডার জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজিব গান্ধী।
গতকাল রোববার বেলা ১টার দিকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে নাটোরের সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে হাজির করা হয় জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজিব গান্ধীকে। প্রায় ৩ ঘণ্টা ধরে জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক শামসুল আল আমিনের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজিব গান্ধী। পরে বিকাল ৫টার দিকে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সুনিল গোমেজ হত্যাকা- নিয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার। এর আগে গত বৃহস্পতিবার তাকে নাটোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের আদালতে হাজির করা হলে আদালত চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আটক আসামি জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজীব গান্ধী গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানার পূর্ণভুতপাড়া গ্রামের ওসমান গণির ছেলে।
প্রেসব্রিফিং এ পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, দেশকে অস্থিতিশীল করতে ভিন্ন ধম্বালম্বীদের টার্গেট করে হত্যা করতো নব্য জেএমবির সদস্যরা। এরই অংশ হিসেবে হত্যা করা হয় সুনিল গোমেজকে। আর এই হত্যাকা- জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজিব গান্ধীর পরিকল্পনায় মোট ৬ জন অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে কিলিং মিশনে অংশ নেয় ৫ জন। সার্বিক বিষয়ে পরিচালনা করতে উত্তরাঞ্চল জেএমবির এই শীর্ষ নেতা। পরে পুলিশের কাউন্টার টেরেরিজম ইউনিটের হাতে আটক হলে সুনিল গোমেজ হত্যা মামলায় গ্রেফাতার দেখানো হয় তাকে। গতকাল রোববার রিমান্ড এবং স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। প্রেসবিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খাইরুল আলম উপস্থিত ছিলেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল হাই জানান, নিহত সুনিল গোমেজের মেয়ে স্বপ্না গোমেজ বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে বড়াইগ্রাম থানায় ঘটনার পরেরদিন একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার প্রেক্ষিতে হত্যাকা-ের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কয়েকজনকে গ্রেফতার করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। এদের মধ্যে জাহাঙ্গীর হোসেনকেও গত ৩ এপ্রিল গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানার পূর্ণভুতপাড়া গ্রামের তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। পরে তাকে আরো জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গত বৃহস্পতিবার  নাটোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে শুনানি শেষে আদালতের বিচারক ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৫ জুন দুপুরে জেলার বনপাড়া খ্রিষ্টান পল্লিতে নিজ বাড়ির পার্শে দোকানের মধ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় মুদি ব্যবসায়ী সুনিল গোমেজকে। সে সময় ওই হত্যাকা- দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করে। পরে অজ্ঞাতদের আসামি করে বড়াইগ্রাম থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে নিহত সুনিল গোমেজের মেয়ে স্বপ্না গোমেজ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ