সেনার খাবার নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ

আপডেট: জানুয়ারি ১১, ২০১৭, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



দিনরাতের হিসেব নেই। জীবনবাজি রেখে সর্বদা সীমান্ত প্রহরায় রত ভারতীয় জওয়ানরা। একে দুর্গম পরিবেশ তার ওপর মাত্র কয়েকহাত দূরেই শত্রুশিবির। সিনেমার পর্দা হোক বা রাজনীতিকদের ভাষণ, তাঁদের হাতিয়ার করেই জাতীয়তাবাদের বুলি আওড়ান সকলে। অথচ সেই সেনার কপালেই ভরপেট খাবার জোটেনা! ফেসবুকে ভিডিও প্রকাশ করে ভারতীয় সেনার দুরবস্থার কথা সামনে আনলেন সীমান্তরক্ষীবাহিনীর কনস্টেবল তেজ বাহাদুর যাদব। তিনটি আলাদা আলাদা ভিডিও প্রকাশ করেছেন তিনি। সবমিলিয়ে ৪ মিনিট দৈর্ঘ্যের। তাতে সীমান্তরক্ষীবাহিনীর নিম্ন মানের খাবারের নমুনা সকলের সামনে তুলে ধরেছেন ৪০ বছর বয়সী তেজ বাহাদুর। জানিয়েছেন, ‘খাবার বলতে সকালে আধপোড়া পরোটা ও চা খেতে দেওয়া হয়। আচার বা তরকারির বালাই নেই। দুপুরে ডাল, রুটি। ডাল না বলে তাকে নুন মেশানো হলুদ গোলা জল বলাই ভাল। দেশের জওয়ানরা দিনে ১১ ঘণ্টা কাজ করেন। এক মূহুর্তও বসার সুযোগ হয় না। কিন্তু এই খাবার খেয়ে এত খাটুনি কি সম্ভব? এমনও হয়, যেদিন খাবার জোটে না। তখন খালি পেটে ঘুমোনো ছাড়া উপায় থাকে না।’ তাঁর মতে, ‘এতে সরকারের কোনও দোষ নেই। তারা তো সময়মতোই সবকিছু পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু ওপরওয়ালাদের দুর্নীতির জেরে তা জওয়ানদের কাছে পৌঁছয় না।’ সেনাবাহিনীর দুরবস্থা নিয়ে মুখ খোলায় তাঁর জীবনের ঝুঁকি বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন তেজ বাহাদুর। কিন্তু কী দুর্বিসহ কষ্টের মধ্যে তাঁদের দিন কাটছে, তা যেন দেশের মানুষ জানতে পারেন। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হস্তক্ষেপ চেয়েছেন তিনি। তদন্তের দাবি করেছেন। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ায় টনক নড়ে কেন্দ্র সরকারের। টুইটারে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং জানিয়েছেন, ‘ভিডিওটি দেখেছি। বিস্তারিত রিপোর্ট তৈরি করতে নির্দেশ দিয়েছি স্বরাষ্ট্র সচিবকে। দোষী প্রমাণিত হলে কাউকে রেয়াত করা হবে না।’ সীমান্তরক্ষীবাহিনীর আধিকারিকরা অবশ্য অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁদের দাবি, ২০১০ সালে উর্দ্ধতন আধিকারিককে হুমকি দেয়ায় তেজ বাহাদুরকে চার বছরের জন্য সাসপে- করা হয়। সেই রাগ মেটাতে যা ইচ্ছে তাই বলে বেড়াচ্ছেন।- আজকাল

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ