সেরা সংগঠক পুরস্কার পেল রাজশাহীর ১৬৪ স্কুল

আপডেট: জুন ১৮, ২০১৭, ১:০২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহী বিভাগের মাধ্যমিক পর্যায়ের ১৬৪টি স্কুলকে ‘সেরা সংগঠক সম্মাননা পুরস্কার’ দেয়া হয়েছে। পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচিতে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এই পুরস্কার লাভ করেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে রাজশাহীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে আনুষ্ঠানিকভাবে এই সম্মাননা পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলার ২৬টি উপজেলার এক হাজার ৬৫২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৬৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির সংগঠককে সেরা সংগঠক সম্মাননা পুরস্কার-২০১৬ প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, বিশ^সাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি অবসরপ্রাপ্ত সচিব ও খোন্দকার মো. আসাদুজ্জামান। প্রধান অতিথি ছিলেন, সেকায়েপ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব ড. মো. মাহামুদ-উল-হক।
বিশেষ অতিথি ছিলেন. অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার আমিনুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মো. হেলাল মাহমুদ শরীফ, মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরের রাজশাহী অঞ্চলের পরিচালক প্রফেসর ড. আবদুল মান্নান সরকার, সেকায়েপ প্রকল্প কর্মকর্তা ফারজানা রসুল ও জেলা শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম।
পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি কো-টিম লিডার শরিফ মো. মাসুদ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, ২০১৭ সালে সারা দেশে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির ২১ লাখ ৭০ হাজার পাঠক হয়েছে। ২০৪১ সালের যে উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেখছেন, সেই উন্নত বাংলাদেশ নির্মাণের জন্য অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষারও উন্নতি প্রয়োজন। এক্ষেত্রে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে পাঠ্যাভাস কর্মসূচি।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সেকায়েপ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব ড. মো. মাহামুদ-উল-হক বলেন, সেকায়েপ প্রকল্পের একটি অন্যতম উদ্যোগ বইপড়া কর্মসূচি। মানুষকে বড় হতে হলে তাকে বই পড়তেই হবে। বই পড়ার কোন বিকল্প নেই। পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির উদ্দেশ্য জীবনকে আলোকিত ও বিকশিত করা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লাইব্রেরি উন্নয়নের জন্য সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের মাধ্যমে দেশের ৮টি বিভাগীয় শহরে পাঠ্যাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির সংগঠকদের সমন্বয়ে ‘সেরা সংগঠক সম্মাননা পুরস্কার-২০১৬’ প্রদান করা হচ্ছে। সারা দেশে মোট এক হাজার ১৮৪ জন সেরা সংগঠক সম্মাননা পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন।