স্টেশনে ফিরতি টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড়, ভোগান্তির অভিযোগ

আপডেট: মে ৬, ২০২২, ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


টানা ছয় দিনের ইদ ছুটি শেষ হওয়ার আগেই রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় জমেছে। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষার প্রহর গুনছেন। আর বরাবরের মতো এবারও টিকিট প্রত্যাশীরা ভোগান্তির অভিযোগ করছেন।

যাত্রীদের অভিযোগ, সকাল ৮টার পর ছাড়া হচ্ছে ফিরতি টিকিট। কিন্তু অনলাইনে নির্দিষ্ট সময়ে ঢুকেও ফিরতি টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না। সার্ভার হ্যাং করছে। সাইটে ঢোকা যাচ্ছে না। আবার কেউ কেউ পেমেন্ট করেও টিকিট পাচ্ছেন না । ফলে ফিরতি টিকিট নিয়েও দুর্ভোগ ও বিড়ম্বনায় পড়েছেন যাত্রীরা।

তাদের অভিযোগ, ইদের আগে টিকিট পেতে বরাবরই ভোগান্তি পোহাতে হয়। ইদের পরও একই দুর্ভোগ। সহজের টিকিট পাওয়া আরও কঠিন।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, ট্রেনের ৫০ শতাংশ টিকিট কাউন্টারে ও বাকি ৫০ শতাংশ টিকিট অনলাইনে স্বাভাবিক নিয়মে বিক্রি হচ্ছে। স্ব-স্ব স্টেশন থেকে ফিরতি যাত্রার জন্য টিকিট দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, প্রায় সব যাত্রীই অনলাইনে টিকিটের জন্য ঢুঁ মারছেন। ফলে কেউ পাচ্ছেন আবার কেউ পাচ্ছেন না। এত মানুষ একসঙ্গে সার্ভারে ঢোকায় সাইট হ্যাং করছে।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে বৃহস্পতিবার (৫ মে) আগামী ৭ ও ৮ মে এর টিকিট বিক্রি করেছে। এছাড়া যে স্টেশন থেকে যাত্রা, সেই স্টেশন থেকেই দেওয়া হচ্ছে ফিরতি টিকিট। পাশাপাশি অনলাইনেও মিলছে ফিরতি টিকিট।

ইদের দিন মঙ্গলবার (৩ মে) রাত থেকেই রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় চোখে পড়েছে। রাজশাহী রেলস্টেশনের টিকিট কাউন্টারে ঢাকায় ফিরতি ২ দিনের টিকিট দেওয়া হচ্ছে একদিনে। এতে টিকিট প্রত্যাশীদের চাপ বাড়লেও কাক্সিক্ষত টিকিট পাননি বেশিরভাগ যাত্রীই।

বিক্রি শুরুর ঘণ্টা খানেকের মধ্যেই কাউন্টারে টিকিট শেষ হয়ে যাচ্ছে। এতে লাইনে দাঁড়ানো যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হচ্ছে। আর অনলাইনে ট্রেনের টিকিটের চাহিদা থাকলেও তা যেনো সোনার হরিণ। টিকিট বিক্রি শুরুর পরপরই সব শেষ হয়ে যাওয়ার অভিযোগও করেছেন ভুক্তভোগীরা।

রাজশাহী রেলস্টেশনে বৃহস্পতিবার (৫ মে) টিকিট কাটতে দাঁড়িয়েছিলেন আফজাল হোসেন। তিনি ঢাকায় একটি বেসরকারি কোম্পানিতে কাজ করেন। তিনি জানান, টিকিট বিক্রি প্রক্রিয়া নামেই সহজ হয়েছে। তার সুফল সাধারণ যাত্রীরা পাচ্ছে না। কাউন্টার বা অনলাইন সবখানেই দুর্ভোগ আর হয়রানি। টাকা কেটে নেওয়ার পরেও টিকিট দিচ্ছে না।

পারভেজ রহমান নামের আরেক যাত্রী জানান, অগ্রিম টিকিট নিতে এসে টিকিট পাইনি। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। অনলাইনে চেষ্টা করেছিলাম সকাল ৮ টায় ঢুকতে পারি নি। টিকিট পাচ্ছে কারা সেটাই বুঝতে পারছি না। অনেকেই অনলাইনে টিকিট ক্রয় করতে পারেন না। এজন্য অনেকে স্টেশনে আসছেন।

রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার আব্দুল মালেক জানান, অগ্রিম টিকিট সকাল ৮ টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত দেয়া হচ্ছে। স্টেশনে ও অনলাইন দুই প্লাটফর্মেই টিকিটের প্রচুর চাপ। আর স্টেশনে যাত্রীদের অসচেতনতা এবং ভিড়ের জন্য ভোগান্তি হতে পারে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ