‘স্ট্রাইক রোটেশন’ না দেখে হতাশ ব্যাটিং কোচ

আপডেট: জানুয়ারি ২৭, ২০২০, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ক্যাম্পে, অনুশীলনে ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে প্রচুর সময় কাটান নিল ম্যাকেঞ্জি। বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচের প্রচেষ্টায় কোনো কমতি এমনিতে চোখে পড়ে না। তার পরও কেন বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের এই দুর্দশা, ম্যাকেঞ্জি নিজেও বুঝতে পারছেন না। পাকিস্তানে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ব্যাটসম্যানদের মধ্যে অভিপ্রায় ও তৎপরতা না দেখে হতাশ ব্যাটিং কোচ।
দল পাকিস্তানে গেলেও ম্যাকেঞ্জি আছেন ঢাকাতেই। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে প্রতিদিনই কাজ করছেন টেস্ট দলের সম্ভাব্য ব্যাটসম্যানদের নিয়ে। তবে টিভিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজের খেলা দেখেছেন ঠিকই।
সোমবার মিরপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ম্যাকেঞ্জি জানালেন তার পর্যবেক্ষণ। নিজেদের খাটুনির প্রতিফলন ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিংয়ে পড়ছে না দেখে তিনি হতাশ।
“স্কোয়াডে অনভিজ্ঞ ক্রিকেটার এই মুহূর্তে অনেক। সেটি মাথায় রেখেও পারফরম্যান্স হতাশার। আমার মনে হয়, প্রথম ম্যাচে ভালো একটি শুরু আমরা কাজে লাগাতে পারিনি। আমার কাছে সবচেয়ে হতাশার, ‘ইনটেন্ট’ দেখতে না পারা।”
“ব্যাটসম্যানদের নিয়মিত প্রান্ত বদলানো, বোলারকে চাপে রাখা, নিজের শক্তির জায়গায় বোলারকে বল করতে বাধ্য করা, এসব নিয়ে আমরা গত বছর দুয়েকে অনেক কাজ করেছি। কিন্তু এই দুই টি-টোয়েন্টিতে সেসবের প্রতিফলন খুব একটা আমরা দেখিনি।”
দলের বেশ কিছু পারিপার্শ্বিক বাস্তবতার কথাও তুলে ধরলেন ম্যাকেঞ্জি। তবে সেসবকে অজুহাত হিসেবে তিনি দাঁড় করাতে চান না। দলকে দেখতে চান খোলা মনে খেলতে।
“আরও অভিপ্রায় দেখানো, আরেকটু বেশি ক্ষুধার্ত থাকা, সত্যিকার অর্থেই ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলা, এসবই ক্রিকেটারদের মধ্যে গেঁথে দেওয়ার চেষ্টা করছে রাসেল (প্রধান কোচ ডমিঙ্গো) ও অন্য সবাই।”
“এই মুহূর্তে দলে তরুণ ক্রিকেটার বেশ কয়েকজন। আরও কয়েকজন আছে, যারা কেবল ফিরেছে। ওদের ওপর তাই চাপ অনেক, পারফর্ম করে দলে টিকে থাকতে হবে। সেটি বোধগম্যই। তবে আশা করি, ওরা বুঝবে যে নির্বাচক ও কোচদের সমর্থন ওরা পাচ্ছে। ওদের স্রেফ মাঠে নেমে খোলা মনে খেলতে হবে।”

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ