স্বপ্ন পূরণের কাছাকাছি মুশফিক

আপডেট: আগস্ট ২৭, ২০১৭, ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত ৫৪টি টেস্ট খেলেছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। ২০০৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক হওয়ার পর খেলেছেন প্রায় সব দলের বিপক্ষেই। তবে এখনও খেলা হয়নি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। অথচ ছোট বেলা থেকেই স্বপ্ন ছিল অজিদের বিপক্ষে টেস্ট খেলার। বুকে লালন করা সেই স্বপ্নটা সোমবার এক যুগ পর পূরণ হতে যাচ্ছে মুশফিকের।
স্বপ্নটা আরও আগেই পূরণ হতে পারতো বাংলাদেশ টেস্ট অধিনায়কের। ২০১১ সালে শেষবার যখন অজিরা বাংলাদেশ সফর করে সেবারই তিনটি ওয়ানডের সঙ্গে খেলার কথা ছিল দুটি টেস্ট ম্যাচ। কিন্তু সেবার ওয়ানডে সিরিজ খেলেই চলে যায় তারা। এরপর প্রাপ্য দুই টেস্ট খেলি-খেলবো করতে করতে অস্ট্রেলিয়ানরা কাটিয়ে দেয় আরও পাঁচ বছর। ২০১৫ সালে সূচি নির্ধারণ করেও তারা আসেনি নিরাপত্তার অজুহাতে। পুনরায় চলতি বছরের সূচি নির্ধারিত হওয়ার পরও জেগেছিল শঙ্কা। তবে শেষ পর্যন্ত নিজের অধরা স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে মুশফিকের।
বহুল আলোচিত অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়ে শনিবার মিরপুর শেরে বাংলায় মুশফিক বললেন, ‘এরকম টপ ক্লাস দলের বিপক্ষে সব সময় খেলার সুযোগ হয় না। স্টিভ ওয়াহ বলেন বা রিকি পন্টিং বলেন। অস্ট্রেলিয়া দলে যারা অধিনায়ক ছিলেন আমি ছোট বেলায় তাদের খেলা দেখেছি এবং তাদের থেকেও অনেক কিছু শিখেছি। ইচ্ছে ছিল অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের সঙ্গে খেলার। আল্লাহর রহমতে আগামীকাল সেটা পূরণ হবে।’
দীর্ঘ অপেক্ষার পর অজিদের বিপক্ষে অধিনায়ক হিসেবেই মাঠে নামবেন মুশফিক। আর এ ম্যাচে অজিদের কাছ থেকে অনেক কিছুই শিখে নিতে চান মুশফিক। শুধু ম্যাচের ভেতরের ব্যপারই নয় মাঠের বাইরেও অনেক কিছুই শেখার আছে বলে মনে করেন তিনি, ‘খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে ও মাঠের বাইরে অনেক কিছুই প্রমাণ করার আছে। ওদের থেকেও অনেক কিছু শেখার আছে।’
স্বপ্ন পূরণের ম্যাচে মুশফিক তাকিয়ে থাকবেন সতীর্থদের দিকে। আশা করছেন সবাই সম্মিলিত পারফরম্যান্স করে স্মরণীয় করে রাখবেন এ টেস্ট সিরিজকে। ঘরে এবং ঘরের বাইরে দুই ক্ষেত্রেই শেষ টেস্ট সিরিজ ড্র করেছে বাংলাদেশ। সেখানে তরুণ খেলোয়াড়দেরও ছিল দারুণ অবদান। এবারও তরুণদের কাছ থেকে ভালো কিছু চান মুশফিক, ‘আমরা শেষ দুই টেস্ট যেভাবে জিতেছি, সেখানে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মিরাজ অসাধারণ স্পেল করেছে। শ্রীলঙ্কায় মুস্তাফিজ মধ্যাহ্ন বিরতির পর অসাধারণ বোলিং করেছে। আমাদের বিশ্বাস আছে আমাদের যেকোনো খেলোয়াড় যে কোনো সময়ে বা সেশনে খেলা ঘুরিয়ে দিতে পারে।’
তবে অজিদের বিপক্ষে টাইগার একাদশ এখনও ঠিক করেননি মুশফিক। সবার পরামর্শে সেরা একাদশ নিয়েই নামবেন বলে জানান তিনি, ‘আমার পক্ষে যেটা করা সম্ভব আমি সেটা সর্বোচ্চ দেয়ার চেষ্টা করব। আমাকে হেল্প করার জন্য তামিম, সাকিব থাকবে। সবাই মিলে কম্বিনেশন তৈরি করে সম্মিলিত সিদ্ধান্ত নিব। চেষ্টা করব যেটা সেরা হয় সেই সিদ্ধান্ত নিতে।’