স্বর্ণ জয়ই কি তবে মাবিয়ার অপরাধ?

আপডেট: ডিসেম্বর ২১, ২০১৬, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



কাতার ইন্টারন্যাশনাল কাপ ভারত্তোলনে স্বর্ণ পদক জয় করে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে যেন বড় অপরাধই করে ফেলেছেন মাবিয়া আকতার সীমান্ত। তাকে সংবর্ধনা বা অভিনন্দন জানানো দূরের কথা, বাংলাদেশ ভারত্তোলন ফেডারেশনের কর্মকর্তারা বরং তাকে মারধর করার হুমকি দিয়েছেন।
উল্লেখ্য বিজয় দিবসের দিনে গত শুক্রবার কাতার ইন্টারন্যাশনাল কাপে মেয়েদের ৬৩ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জেতেন বাংলাদেশের মাবিয়া, আর ৫৩ কেজি ওজন শ্রেণিতে দেশকে স্বর্ণ এনে দেন জহুরা আক্তার রেশমা। তাদের অপরাধ তারা ভারত্তোলন ফেডারেশনের অ্যাডহক কমিটির অনুমতি না নিয়ে বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক উইং কমান্ডার (অব.) মহিউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে কাতার গিয়ে এই স্বর্ণ পদক জিতেছেন।
এর আগে বারবার তাগাদা দেয়া সত্ত্বেও ফেডারেশনের অ্যাডহক কমিটি মাবিয়া ও রেশমাকে কাতার যাওয়ার ব্যাপারে সহযোগিতা করে নি। গত ২০ বছর ধরে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করা উইং কমান্ডার (অব.) মহিউদ্দিন আহমেদ যেহেতু এশিয়ান ভারত্তোলন ফেডারেশনেরও সদস্য, তাই তিনি নিজ উদ্যোগে এগিয়ে আসেন এবং দুই ভারত্তোলককে কাতার যাওয়ার ব্যবস্থা করেন। মাবিয়া ও রেশমা যাওয়ার আগে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে তাদের কাতার গমনের ব্যাপরাটি জানান। তাদের সঙ্গে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের একজন কোচও ছিলেন।
ফেরার পর মাবিয়াসহ রেশমাকে হুমকি দেন অ্যাডহক কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন। মাবিয়া বলেন, ‘আমার ক্যারিয়ার শেষ বলে হুমকি দিয়েছে, বলেছে কোন সাহসে ও কার অনুমতিতে আমি কাতার গিয়েছি? বলেছে গুলিস্তান এলাকায় আমাকে দেখা গেলে মারবে’।
এ ব্যাপারে উইং কমান্ডার (অব.) মহিউদ্দিন আহমেদের বক্তব্য হলো, ‘কাতারের এই ইভেন্ট বাংলাদেশ গত কয়েক বছর থেকে নিয়মিত অংশগ্রহণ করে আসছে, আজ যারা ফেডারেশনের দায়িত্বে আছে তাদের এটি অজানা নয়। আমি যেহেতু এশিয়ান ভারত্তোলন ফেডারেশনেরও সদস্য তাই মাবিয়া-রেশমাদের নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেছি। সেখানে সাফল্য পেয়ে তারা শুধু দেশের ভাবমূর্তিই উজ্জ্বল করেনি, তারা আর্থিকভাবেও লাভবান হয়েছে।’
তিনি আরো যোগ করেন, ‘ফেডারেশনের কর্মকর্তারা অফিসে আসেন না। কর্মচারীদের কয়েক মাস বেতন বাকি পড়ে গেছে। যারা ফেডারেশনই ঠিকমতো চালাতে পারেন না তারা খেলোয়াড়দের বিদেশ পাঠানোর অর্থ সংস্থান করবেন কীভাবে।’ এ ব্যাপারে মকবুল হোসেনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।-বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ