‘স্বাধীনতা ছাড়া বাঙালীর মুক্তি নেই’- ১৯৬২ সালে কমিউনিস্ট নেতাদের বলেছিলেন বঙ্গবন্ধু

আপডেট: আগস্ট ১৪, ২০২১, ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


‘স্বাধীনতা ছাড়া বাঙালী জাতির মুক্তি নেই’- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান সৃষ্টির পরেই সেটা বুঝতে পেরেছিলেন।
পাকিস্তানে সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের লক্ষ্যে ১৯৬২ সালে এক আলোচনা সভায় কমিউনিস্ট নেতাদের বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন ‘আমার বিশ্বাস গণতন্ত্র, স্বায়ত্বশাসন এসব কোনো দাবিই পাঞ্জাবীরা মানবে না। স্বার্ধীনতা ছাড়া বাঙালির মুক্তি নেই।’
এম নজরুল ইসলাম সম্পাদিত ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মারকগ্রন্থ-৩’-এ বঙ্গবন্ধুকে মূল্যায়ন ও তাঁর রাজনৈতিক দর্শন সম্পর্কে প্রকাশিত নিবন্ধে প্রয়াত সংবাদ সম্পাদক বজলুর রহমান এ কথা লিখেছেন।
সাংবাদিক বজলুর রহমান তার নিবন্ধে বলেছেন, ‘ পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের লক্ষ্যে ১৯৬২ সালে কমিউনিস্ট পার্টি ও আওয়ামী লীগ ঢাকায় একাধিক বৈঠক করে। ওই বৈঠকের মাধ্যমেই বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে মনি সিং ও খোকা রায়ের প্রথম পরিচয় হয়। বৈঠকে কমিউনিস্ট পার্টি সামরিক শাসন প্রত্যাহার ও পূর্ণ গণতন্ত্র কায়েম, সকল রাজবন্দীর মুক্তি, পূর্ব বাংলার পূর্ণ স্বায়ত্তশাসন এবং শ্রমিক-কৃষক-মধ্যবিত্তের জীবন ধারণের মান উন্নয়নে আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন করার দাবি তোলেন। ’
সংবাদ সম্পাদক লিখেছেন, বঙ্গবন্ধু ওই বৈঠকে তাদের বলেছিলেন, আপনাদের দাবি-দাওয়ার কোনটির ব্যাপারেই আওয়ামী লীগের দ্বিমত নেই। আন্দোলন কর্মসূচিতে এসব দাবি-দাওয়া রাখুন, কোন আপত্তিও নেই। কিন্তু ‘দাদা, একটা কথা আমি খোলাখুলি বলতে চাই। আমার বিশ্বাস গণতন্ত্র, স্বায়ত্তশাসন এসব কোনো দাবিই পাঞ্জাবীরা মানবে না। কাজেই স্বাধীনতা ছাড়া বাঙালীর মুক্তি নেই। স্বাধীনতার দাবিটা আন্দোলনে রাখতে হবে।’
বজলুর রহমান আরো লিখেছেন, দুই রাজনৈতিক দলের ফলপ্রসূ আলোচনার পরে কলকাতা থেকে দুটি চিঠির মাধ্যমে খোকা রায় তাকে (বজলুর রহমান) জানান, শেখ মুজিবের খোলামেলা বক্তব্য তাদের ভালো লেগেছিল। মনি দা ও তার দৃঢ় আস্থা জন্মেছিল যে, বঙ্গবন্ধুর খোলাখুলি ও আন্তরিকতাপূর্ণ আলোচনার কোথাও কোনো ফাঁকিঝুঁকি বা ঘোরপ্যাঁচ ছিলো না। তারা বলেছেন- ‘শেখ মুজিবের কথাবার্তায় সবসময় একটা মানবিক আবেগ ফুটে উঠতো। তাদের দৃঢ় বিশ্বাস, শেখ মুজিব ছিলেন খাটি বাঙালী দেশপ্রেমিক সোনার বাংলা গড়ে তোলার স্বপ্নে আত্মনিবেদিত।’
তথ্যসূত্র: বাসস