স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিশ্চিতের দাবিতে রামেক ইন্টার্নদের কর্মবিরতি

আপডেট: মার্চ ২০, ২০২০, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


করোনাভাইরাসের ঝুঁকি মোকাবেলায় নিজেদের যথাযথ স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকেরা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে সাড়ে তিনঘণ্টা ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের ডাকে তারা কর্মবিরতিতে যান। আর পরিচালকের দাবি পূরণের আশ্বাস এবং তাৎক্ষণিকভাবে মাস্ক, হ্যান্ড গ্লোভস সরবরাহ করায় বেলা সাড়ে ১১টার কাজে যোগ দেন তারা।
এ সময় ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হাসান বলেন, চিকিৎসকদের জন্য ন্যূনতম নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। তাই সবাই কর্মবিরতি পালন করছে। পরে তাদের দাবি মানার আশ্বাস দিয়ে কিছু মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লোভস সরবরাহ করে। এরপর ইন্টার্ন চিকিৎসকরা কাজে যোগ দেন। তিনি বলেন, হাসপাতালে ২০০ ইন্টার্ন চিকিৎসক আছেন। তাদের জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ব্যক্তিগত নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা করেন নি। জ্বর সর্দি-কাশিসহ সব ধরনের সংক্রমণ নিয়ে রোগীরা হাসপাতালে ঢুকছেন। তাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে। কিন্তু নিরাপত্তাহীন অবস্থায় চিকিৎসকদের ওই রোগীদের চিকিৎসা দিতে হচ্ছিল। ইকবাল হাসান আরও বলেন, নৈতিক কারণে তারা ডেঙ্গু পরিস্থিতির সময় দায়িত্ব পালন করেছেন। তখনো একই অবস্থা ছিল। এবারও একই পরিস্থিতি থাকায় ২০০ ইন্টার্ন চিকিৎসকের কথা চিন্তা করে বুধবার তারা হাসপাতালের পরিচালকের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। তাদের দাবি দাওয়া শুনে পরিচালক বলেছেন, তিনি মন্ত্রণালয়ে কথা বলবেন। কিন্তু চিকিৎসা সেবা চালিয়ে নিতে হলে এই সমস্যার তাৎক্ষণিক সমাধান দরকার বলে আমরা মনে করি। তাই কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তার জন্য কোনো ধরনের ব্যবস্থা না নেয়ায় ইন্টার্ন চিকিৎসকেরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিতে যান বলে জানান ইকবাল হাসান।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, বেলা ১০টার দিকে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা পরিচালকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাদের দাবি তুলে ধরেছেন। পরিচালক তাদের দাবি পূরণে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। তবে চিকিৎসকদের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে প্রয়োজনীয় সামগ্রীর জন্য মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়া হয়েছে। আমাদের কাছেও বেশ কিছু সামগ্রী মজুদ ছিল। সেগুলো ইন্টার্নদের দেয়া হয়েছে বলে জানান রামেক হাসপাতালের এই কর্মকর্তা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ