সড়ক সম্প্রসারণের জন্য নাটোরে শুরু হয়েছে সড়ক বিভাগের উচ্ছেদ অভিযান

আপডেট: মে ১৬, ২০২২, ১০:৩১ অপরাহ্ণ

নটোর প্রতিনিধি:


নাটোরে শুরু হয়েছে সড়ক বিভাগের উচ্ছেদ অভিযান, শহরের অভ্যন্তরে প্রধান সড়কে চলমান উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কাজের জন্য উভয় পাশের অধিগ্রহণকৃত এবং অবৈধ দখলে থাকা শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। সড়ক প্রশস্তকরণ কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সম্পত্তি ও আইন কর্মকর্তা কামরুজ্জামান মিয়া উচ্ছেদ কার্যক্রমের নেতৃত্ব দেন।

সোমবার (১৬ মে) সকাল থেকে শহরের কানাইখালী এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। এর আগে গত শনিবার থেকে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্টান এবং ভবন মালিকরা নিজ উদ্যোগে স্থাপনা ভাঙ্গতে এবং অবকাঠামো সরাতে দেখা যায়। অপরদিকে শহরের সড়ক প্রশস্তকরণ কার্যক্রম দেখার জন্য শত শত উৎসুক জনতা দিন ভর ভির জমায়েত করতে দেখা যায়।

গতকাল সোমবার সকাল ১১টার দিকে সড়ক বিভাগের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপ সচিব কামরুজ্জামান মিয়ার নেতৃত্বে শুরু হয় উচ্ছেদ অভিযান। অভিযানে নাটোর শহরের শত বছরের পুরাতন স্থাপনাও গুড়িয়ে দেয়া হয়। এতে নাটোর সড়ক ও জনপথ বিভাগ ৮৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নাটোর শহরের হরিশপুর বাইপাস থেকে বেলঘড়িয়া বাইপাস পর্যন্ত সাড়ে ৫ কিলোমিটার সড়ক সম্প্রসারণ করে দুই লেনে বিভক্ত করার কাজ শুরু হয় ২০১৭ সালে। মামলাসহ নানা জটিলতায় মাঝপথে আটকে ছিল কাজটি। আগামি তিনদিন এ অভিযান চলবে বলে জানান তিনি।

তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১১ সালের শেষভাগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাটোর সফরকালে শহরবাসীকে দেয়া সাতটি প্রতিশ্রুতির অন্যতম ছিল শহরের মধ্যে দিয়ে যাওয়া সড়কটির ডিভাইডারসহ প্রশস্তকরণ করা।

সেই সূত্রে এডিবির অর্থায়নে নাটোর শহরের হরিশপুর বাইপাস মোড় থেকে বনবেলঘরিয়া বাইপাস মোড় পর্যন্ত নাটোর শহরের প্রধান সড়কের মিডিয়ানসহ পেভমেন্ট প্রশস্তকরণ প্রকল্পের আওতায় মোট ৫.৮৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ডিভাইডার ও ড্রেন-ফুটপাথসহ ৪৮ ফুট প্রস্থের সম্প্রসারিত সড়কের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ৫৮ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

এর মধ্যে ডিভাইডারের দুইপাশে ১৮ ফুট করে সড়ক প্রশস্তকরণ, চার ফুট করে ড্রেন-ফুটপাথ নির্মাণ করার পরিকল্পনা আছে।
নাটোর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুর রহিম জানান, শহরের মধ্য দিয়ে প্রায় ছয় কিলোমিটার সড়ক প্রশস্তকরণ কাজ শুরু করা হয়।

এর মধ্যে শহরের জিরো পয়েন্টের উভয় পাশে প্রায় ৭০০ ফুট দৈর্ঘ্যের সড়ক ১০০ ফুট প্রশস্ত করা হবে। এজন্য জমি অধিগ্রহণ কার্যক্রমে অর্থ পরিশোধের জন্য সাড়ে ২৮ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। ক্ষতিগ্রস্ত মোট ১০২ জনের মধ্যে ১৩ জনকে ১ কোটি ৪৪ লাখ ৮৬ হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়।

আগামী জুন মাসের মধ্যেই নাটোর শহরের হরিশপুর থেকে বনবেলঘড়িয়া বাইপাস পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণের কাজ শেষ হবে। সড়ক প্রশস্তকরণে অধিকগ্রহণ করা ভূমির মালিকরা সরকারি উন্নয়ন কাজের জন্য দ্রুত সময়ে মধ্যে তাদের স্ব-স্ব স্থাপনা এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সরিয়ে নেয়ার কথা বলেন তিনি।