হালখাতায় ৫৬৬ কোটি টাকা পরিশোধ

আপডেট: এপ্রিল ১৭, ২০১৭, ১২:১২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


‘কর যাদুকর’ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান উদ্যোগে প্রথম বছরের সফলতা মুখ দেখলো এনবিআর আয়োজিত ‘রাজস্ব হালখাত’। চৈত্র সংক্রান্তিতে দেশব্যাপী সকল রাজস্ব অফিসে পালিত হালখাতায় কর দাতারা ৫৬৬ কোটি টাকা বকেয়া পরিশোধ করেছে।এনবিআরের সিনিয়র তথ্য অফিসার সৈয়দ এ মু’মেন পরিবর্তন ডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
জানা যায়, সকাল ৯টা থেকে ‘ওপেন হাউজ ডে’ পরিবেশে ঢাকার কর অঞ্চলগুলোর পাশাপাশি সারাদেশের কর, ভ্যাট ওকাস্টমস অফিসে ‘রাজস্ব হালখাতা’ শুরু হয়ে। এদিন কর দাতারা বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ করেছে ৩০৬ কোটি টাকা, শুল্ক পরিশোধ করেছে ২০৭ কোটি টাকা, মূল্য সংযোজন কর পরিশোধ করেছে ৫৩ কোটি টাকা। অর্থ্যাৎ সর্বমোট পরিশোধ করেছে ৫৬৬ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম অঞ্চলে সর্বোচ্চ ১২৭ কোটি টাকার বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ করেছে কর দাতারা।
সূত্র জানায়, এনবিআরের অধীনস্থ বৃহৎ করদাতা ইউনিটের (এলটিইউ) অধীনে ১ হাজার ১৪১ বৃহৎ করদাতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বাকি কর আদায়ে চেয়ারম্যানের নির্দেশনায় এলটিইউ ‘ওপেন হাউজ ডে’ এর পরিবেশে ব্যতিক্রমী ‘রাজস্ব হালখাতার’ আয়োজন করেছে এনবিআর।
কর দাতাদের জন্য চৈত্র সংক্রান্তিতে খোলা হয়েছে হালখানার ঐহিত্যবাহী নতুন রেজিস্টার খাতা। মাটির সানকিতে দেওয়া হয়েছে মিষ্টি, বাতাসা, নারিকেলের নাড়ু, সন্দেশ, খৈ, কদমা, মুরালি, নিমকী, মুড়ির মোয়া, চিড়ার মোয়া, তিলের খাজা, সুন্দরীপাকন পিঠা, শাহী পাকন পিঠা, নকশি পিঠা, ঝিনুক পিঠা, স্পন্স রসগোল্লা, দই, ডাবের পানি, তরমুজ, পেয়ারা, বরই ইত্যাদি।
উল্লেখ্য, মোগল সম্রাট আকবর জমির খাজনা আদায়ে প্রচলন শুরু করেন হালখাতার। বাংলা নতুন বছরের প্রথম দিন প্রজারা উৎসব মুখর পরিবেশে আকবরের আতিথেয়তা নিয়ে হিসাব কষে পুরাতন বছরের খাজনা পরিশোধ করে দিতেন। দীর্ঘকয়েক যুগ পর বাঙালির এ প্রাণের উৎসব আবারও রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।