‘হাসি’ মুখে বিল দিন!

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


রেস্টুরেন্টে গিয়েছেন খেতে কিংবা কাউকে খাওয়াতে, খেতে কিংবা খাওয়ানোর সময়টুকু ভালোই কাটে। বিপত্তি বাঁধে বিল দেয়ার সময়! খেতে সবারই ভালো লাগে কিন্তু সেই খাবারের বিল মেটাতে কি সেরকম ভালো লাগে? প্রশ্নই ওঠেনা।
তবু খাওয়া শেষে হাসিমুখেই বিলটা দিয়ে আসি। তা সে হাসি কৃত্রিম হোক অথবা অকৃত্রিমই হোকনা কেন। এবার যাতে বিল দেয়ার সময় আপনার মুখে হাসি থাকে সে ব্যবস্থা করেছে আন্তর্জাতিক চেইন রেস্টুরেন্ট কেএফসি।
কেএফসি তাদের চিনের একটি প্রদেশের ব্রাঞ্চে এই সুবিধা পরীক্ষামূলক ভাবে চালু করেছে। চীনের হ্যাংঝু প্রদেশের একটি মাত্র শাখায় পরীক্ষামূলক ভাবে এ সেবা চালু করেছে।
আসলে ‘হাসি’ দিয়ে বিল পরিশোধের পেছনে কাজ করছে এন্ট ফিনান্সিয়াল নামের একটি প্রতিষ্ঠান। যারা বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান ‘আলীবাবা’র একটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান। এন্ট ফিনান্সিয়াল হাসি দিয়ে বিল পরিশোধের প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে ২০১৫ সাল থেকে। অবশেষে তাদের এই প্রকল্প আলোর মুখ দেখছে।
এন্ট ফিনান্সিলায়েলের ভাষ্য মতে, এ প্রক্রিয়া কাজ করে থ্রিডি ক্যামেরা এবং ‘লাইভ-নেস ডিটেকশন অ্যালগরিদম’ প্রযুক্তিতে। এটা ২/১ সেকেন্ডের ভেতর আপনার হাসিকে চিহ্নিত করে আপনার বিল পরিশোধ করবে। আর এই প্রযুক্তি অনেক নিরাপদ। এই প্রযুক্তি ছবি কিংবা ভিডিও শণাক্ত করতে পারে। অর্থাৎ কেউ যদি বন্ধু বা আত্মীয়ের হাসির ছবি বা ভিডিও নিয়ে এই ডিভাইসের কাছে যায় তবে তা সহজেই ধরা পরবে। কারণ এর উচ্চপ্রযুক্তি সম্পন্ন ক্যামেরা মানুষের ছায়া থেকে শুরু করে অন্যান্য নড়াচড়া শণাক্ত করে মানুষ এবং নকল কিছুর পার্থক্য করতে পারে।
এন্ট ফিনান্সিয়ালের হেড অব বায়োমেট্রিক আইডিটেনফিকেশন টেকনোলোজি, জাইডন চেন বলেন, এটা খুব কঠিন অ্যালগরিদম। এটা সহজ কোনো প্রযুক্তি নয়। তাদের প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, একজন মহিলা একবার অল্প মেকআপ নিয়ে হাসি দিয়ে বিল দেন, আবার বেশি মেকআপ নিয়ে আসেন এবং সর্বশেষে উইগ পরে আসেন। তিন ক্ষেত্রেই তাকে শণাক্ত করতে পারে। সুতরাং কেএফসি’র এই উদ্যোগ যদি সফল হয়, তবে একদিন ঢাকায়ও হয়তো সবাইকে হাসিমুখে বিল দিতে দেখা যাবে!

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ