হেলেনা বেগম : যার সত্তায় ছড়া খেলা করে

আপডেট: অক্টোবর ৮, ২০২১, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

মো. আব্দুস সামাদ:


গীতি কবি খন্দকার হেলেনা বেগম একজন স্বনামখ্যাত মহীয়সী ব্যক্তিত্ব। তিনি একাধারে কবি গীতিকার সঙ্গীত শিল্পী ও প্রবন্ধকার। বাংলাদেশ বেতার রাজশাহী কেন্দ্র থেকে তার লেখা অনেক গান প্রচারিত হয়ে আসছে। তার স্বকন্ঠে আবৃত্তি করা কবিতাও প্রচারিত হয়। এই গুণী মানুষটি একজন একনিষ্ঠ দেশপ্রেমিক। দেশাত্মবোধক গান দেশের প্রতি ভালবাসা তার লিখনীতে এত সুন্দরভাবে প্রকাশ পেয়েছে যা সত্যি আমাদের মন-প্রাণকে আনন্দে আন্দোলিত করে। প্রেম দ্রোহ মিলন-বিরহ এমন নানা আকুতির সুর অন্তর থেকে উঠে আসে। সম্প্রতি গণদৃষ্টি প্রকাশনা থেকে প্রকাশিত ‘বাংলার মুখ’ ছড়ার গ্রš প্রকাশ পেয়েছে’।
এই ছড়া গ্রন্থ পঠনে শিশুর স্বপ্নরাজ্য বিকশিত হবার পাশাপাশি বড়দেরও হৃদয়ে আনন্দের শিহরণ জাগবে। এই গ্রন্থে মোট ৪৮টি ছড়া স্থান পেয়েছে। আমি কয়েকটি ছড়া থেকে তার রচনা শৈলী ভাব ছন্দ প্রকরণ নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করছি। কবি হেলেনা বেগম তার প্রথম ছড়ার শিরোনামে লিখেছেন ‘আমার স্বদেশ ভূমি’। এখানে দেশের স্বাধীনতার কথা বলতে গিয়ে কত প্রাণের রক্ত ঝরার কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন।
‘এ দেশের তরে বেজেছে কতনা যুদ্ধের বণতুর্য্য
লাখো শহীদের রক্তে রেঙ্গে এখানে উঠেছে সূর্য্য॥’
২.
দেশের মমতায় তার চোখ-মন আপ্লুত। দেশের রূপরেখায় তিনি নিজেকে সারাক্ষণ আবৃত করে রেখেছেন,” তিনি লেখেছেন: “এদেশ আমার শ্যামল বরণ রাখালিয়া বাঁশীর সুর/ নদ-নদীনি চলছে ভেসে কোন অজানায় কোন সুদূর।” (শ্যামল মায়ার দেশ ছড়ায়)
‘স্বাধীনতার কথা’ এই ছড়ায় তিনি বলছেন: ‘স্বাধীনতা তুমি রক্তে লেখা কবিতা, দুরন্ত দুর্জয় গান / তুমি জাগ্রত দুর্বার মুক্তি সেনা, অনাদি-আদি-তুমি রিাজমান’
বাংলা ভাষা আমাদের মায়ের ভাষা। মায়ের ভাষার মত আর কি কোন প্রিয় ভাষা হতে পারে? ‘আমার বাংলা ভাষা’ ছাড়ায় তিনি লিখেছেন -‘আমার মায়ের মুখের ভাষা চিরদিনের বাংলা ভাষা / জীবন চলার সাধ স্বপনে আমার কান্না আমার হাসা।’ বাংলায় কথা বলা বাংলায় স্বপ্নদেখা বাংলায় কবিতা গান লেখা এর থেকে আর কি কিছু প্রিয় হতে পারে? বাংলা গানে প্রাণ মন জুড়িয়ে যায়। ‘শ্যামল বাংলা’ ছড়ায় লিখেছেন: ‘পাগল করো নয়ন ভরো শ্যামল রূপের বাংলা তুমি / মুগ্ধকর নিখিল ভুবন। শ্রেষ্ঠ সবার সৃষ্টি তুমি।’ দেশকে ভালবাসলে এমন কথাটাই তো বলা স্বাভাবিক। বাংলা মায়ের শ্যামল রূপে কবি মুগ্ধ হয়েই বলেছেন এমন কথা- ‘বকুল ঝরা তোমার পথে সুবাস ছড়ায় হাওয়ার পথে, তোমার বুকে জন্ম নিয়ে, ধন্য সবাই ধন্য আমি।’

‘ছড়া গান’ ছড়ায় লিখেছেন এতে শিশুরা অনুপ্রণিত হবে। – ‘লেখা পড়া শেষ করে পড়লে বেলা খেলবো। কেহনা আমায় মন্দ বলে তেমনি পথে চলবো। আমরা ছোট বড় হয়ে জ্ঞানের প্রদীপ জ¦ালবো। রাতের আঁধার সড়িয়ে দিয়ে আলোর দুয়ার খুলবো।’ এমন উপদেশ মূলক কথা শিশুদের হৃদয়গ্রহী করবে বইকি?
‘হারানো দিন পড়ে মনে” ছড়ায় কি সুন্দর ছন্দ তুলে এসেছে-
বুলবুলি আর ফিঙে নাচে-
‘ঢেউয়ের দোলায় ডিংগে নাচে
নদীর বুকে আসে বান-
ব্যাঙের রাজা ধরে গান।
কাজল পড়া হরিণ নাচে-
ছন্দ তুলে ময়ূর নাচে
নৌকা চলে দূরের গাঁয়
ধানের খেতে বাতাস বয়।’
বুলবুলি ফিঙে কি সুন্দর নাচ দেখায়। ঢেউয়ের তালে তালে ডিঙি নাচে- নদীতে বান আসে ব্যাঙ বানের আনন্দে গান ধরে। ময়ূর ছন্দ তুলে নাচে ধানের খেতে ঝিরিঝিরি বাতাস বয় কি সুন্দর চিত্র তুলে ধরেছেন। শিশুরা তা পাঠে আনন্দে মেতে উঠবে বইকি। ‘আপন দেশ’ ছড়ায় লিখেছেন: আমরা তরুণ অরুন সেনা অগ্রে চলি হার মানি না। আমরা বাংলা মায়ের ছেলে। দেশের তরে রক্তো দোলে।

দেশের প্রতি ভালবাসায় প্রকৃষ্ট কথনে এমন ভাবে তিনি তুলে ধরেছেন যা তরুণ তরুণেরা শক্তি সাহস বল পাবে। শত্রুদের পরাজিত করার জন্য রক্ত টগবগ করে দেশ মাতৃকার জন্যে রক্ত দিতে জীবন দিতে কুন্ঠিত হয় না তারা।
‘বাংলা মায়ের মণি’ তিনি দেশের প্রতি প্রাণের ভালবাসা গভীরভাবে ঢেলেছেন এইভাবে। তিনি বলেছেন, ‘বাংলা আমার জন্মভূমি বাংলা আমার গান, বাংলা আমার সকল আশা বাংলা আমার প্রাণ, লক্ষ সাগর রক্ত দিয়ে এদেশ করেছি জয়, সোনার আখের হয়েছে লেখা সে কথা ভুবনময়।’
‘চাঁদের হাসি’ ছড়ায় তিনি কি সুন্দর অনবদ্য ছন্দ তুলে বলেছেন: বাংলা মায়ের রূপের কথা, কোকিলের মিষ্টি মধুর কুহু গানের কথা; ভাঙা মেঘে চাঁদের হাসির কথা; যা শিশুরা পাঠে আনন্দিত হবে। তিনি বলেছেন-
কোকিল-ডাকে কুহু শ্যামল বনে ছা, আকাশে চাঁদের হাসি- ভাঙা মেঘের গায়, ঝিঁ ঝিঁ পোকা প্রদীপ জ¦ালে রাতের আঁধার ক্ষণে। ফুলের সুবাস মাখা বাতাস বহে আপন মনে’
কবি ছড়াকার হেলেনা বেগম নানাগুণে গুণান্বিত। শান্ত স্বভাব ধীর গতি সম্পন্ন। মানুষের প্রতি তার আছে অফুরন্ত ভালবাসা। এবার আমি তাঁর জীবনের প্রীতি ও তার কৃতিত্বের প্রতি আলোকপাত করবো।

কবি হেলেনা বেগমের জন্ম- ০৭/০৭/১৯৪৮খ্রী:, পিতা খন্দকার মতিউর রহমান, মাতা- মোসা: লুৎফুননেশা। গ্রাম: রতন কান্দি- গ্রাম্য উপজেলা শাহাজাদপুর, জেলা: সিরাজগঞ্জ, বর্তমান ঠিকানা সেক্টর বি/বাসা নং- ২৬৬ উপশহর, রাজশাহী, প্রকাশিত গ্রন্থ সমূহ- ২৩ (তেইশটি) সম্মাননা পদক ১৭(সতেরোটি) কবি হেলেনা বেগম ও বাংলার মুখ এর লেখিকা বাংলা দেশের সাহিত্যঅঙ্গনে ভূয়সী প্রশংসার দাবী দার বলা যায়। তিনি বাংলাদেশ বেতার রাজশাহীর “ক” শ্রেণির গীতিকার। তিনি মূলত: নজরুল সংঙ্গীত গেয়ে থাকেন। হেলেনা বেগম এর প্রতিটি লেখা শিল্প সাহিত্য রসে ভরপুর, উপমা, উৎপেক্ষা, অনুপ্রাস, ছন্দ প্রকরণে পাকা হস্তের চিহ্ন ফুটে উঠেছে। তাঁর জীবন দর্শন অত্যন্ত প্রখর- প্রেম দ্রোহ তার মধ্যে ফুটে উঠেছে অত্যন্ত চমৎকার রূপে। তাঁর প্রতিটি লেখায় তাঁর নিজেস্ব স্বকীয়তা ফুটে উঠেছে এটাই তাঁর জীবনে বড় কৃতিত্ব/তার লেখা লেখিতে আরো সমৃদ্ধ ঘটুক এটাই আমার কামনা তিনি দীর্ঘজীবী হউন।