হ্যামিল্টনে জয় দেখছে নিউজিল্যান্ড

আপডেট: মার্চ ২৯, ২০১৭, ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



নিউজিল্যান্ড দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট জয়ের স্বাদটাই যেন ভুলে গেছে! সবশেষ জয়টি যে সেই ২০০৪ সালে। এরপর এক যুগেরও বেশি সময়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে ১৫ টেস্টের ১০টিতেই হেরেছে নিউজিল্যান্ড। বাকি পাঁচটি হয়েছে ড্র। দীর্ঘদিন পর আবার প্রোটিয়াদের বিপক্ষে টেস্ট জয়ের অনেকটাই কাছাকাছি কিউইরা।
হ্যামিল্টন টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১৭৫ রানের লিড নিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। চতুর্থ দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ৮০ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ঘাটতি পুষিয়ে নিউজিল্যান্ডকে আবার ব্যাটিংয়ে নামাতেই এখনো ৯৫ রান করতে হবে প্রোটিয়াদের। হাতে উইকেট মাত্র ৫টি!
আগের দিনের ৪ উইকেটে ৩২১ রান নিয়ে সেডন পার্কে মঙ্গলবার চতুর্থ দিন শুরু করেছিলেন কেন উইলিয়ামসন ও মিচেল স্যান্টনার। দুজন পঞ্চম উইকেটে গড়েন ৮৮ রানের জুটি। মরনে মরকেল জুটি ভাঙার আগে ২৮৫ বলে ১৬ চার ও ৩ ছক্কায় ১৭৬ রান করেন উইলিয়ামসন।
স্যান্টনার কাগিসো রাবাদার বলে আউট হওয়ার আগে করেন ৪১। আর শেষ দিকে কলিন ডি গ্র্যান্ড হোমের ৫৭ রানের সুবাদে নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংস শেষ হয় ৪৮৯ রানে। মরকেল ও রাবাদে নেন ৪টি করে উইকেট।
পৌনে দুইশ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ২৫ রানেই দুই ওপেনারকে হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ডিন এলগারকে ফিরিয়ে উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন ডি গ্র্যান্ডহোম। আরেক ওপেনার ডি ব্রুয়ন রানআউটে কাটা পড়েন।
এরপর স্পিনার জিতান প্যাটেল নিজের তিন ওভারের মধ্যে ফিরিয়ে দেন হাশিম আমলা ও জেপি ডুমিনিকে। ডি গ্র্যান্ডহোমকে ক্যাচ দেওয়ার আগে আমলা করেছেন ১৯। ১৩ রান করে ডুমিনি হয়েছেন বোল্ড।
দ্রুত ম্যাট হেনরির বলে ফিরে যান টেম্বা বাভুমাও। দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর তখন ৫ উইকেটে ৫৯! দিনের বাকি সময়টা নিরাপদে পার করে দেন ফাফ ডু প্লেসি ও কুইন্টন ডি কক। দুজনই ১৫ রানে অপরাজিত আছেন। রাইজিংবিডি