০৮ আগস্ট

আপডেট: August 8, 2020, 12:07 am

৮ আগস্ট ১৯৩০ : বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী শেখ ফজিলাতুন্নেসা ওরফে রেণুর জন্মদিন। এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে শেখ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার পিতার নাম শেখ জহরুল হক এবং মাতার নাম হোসনে আরা। ৩ বছর বয়সে পিতা এবং ৫ বছর বয়সে মাতা মারা যায়।
বড় হন দাদা শেখ কাশেমের কাছে। বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব প্রথমে গোপালগঞ্জ মিশন স্কুলে ও পরে সামাজিক কারণে গৃহশিক্ষকের কাছে পড়াশোনা করেন। দাদার চাচাতো ভাই শেখ লুৎফর রহমানের ছেলে শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে রেনুর বিয়ে হয়। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, শেখ ফজিলাতুন্নেছার মতো ধীরস্থির, বুদ্ধিদীপ্ত, দূরদর্শী, নারীর সাহসী, বলিষ্ঠ, নির্লোভ ও নিষ্ঠাবান ইতিবাচক ভূমিকা শেখ মুজিবকে বঙ্গবন্ধু তথা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি হতে সহায়তা করেছে। জনগণের কল্যাণে সমগ্র জীবন তিনি অকাতরে দুঃখবরণ ও সর্বোচ্চ আত্মত্যাগ করেছেন। সেই বিবেচনায় বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব স্মরণীয় একটি নাম। একটি ইতিহাস। মনেপ্রাণে একজন আদর্শ নারী। সন্তানদের সার্থক মাতা। বিচক্ষণ উপদেষ্টা ও পরামর্শদানকারী। আর বঙ্গবন্ধুর সুখ-দুঃখের সাথি এবং প্রেরণা ও শক্তির উৎস ছিলেন তিনি।
৮ আগস্ট ১৯৭২ : বঙ্গবন্ধু অবিলম্বে জাতিসংঘের সদস্যপদ দাবি করেন। কিন্তু চিনের ভেটোর কারণে তা বাতিল হয়ে যায়।
৮ আগস্ট ১৯৭২ : মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পরিবার ও আহত মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসন তথা কল্যাণ সাধনের জন্য বঙ্গবন্ধুর বিশেষ আগ্রহে রাষ্ট্রপতির এক আদেশ বলে (রাষ্ট্রপতির আদেশ নম্বর ৯৫, ১৯৭২) ‘মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট’ গঠন করা হয়।