২০০০ বছর পুরনো কঙ্কালের খুলিতে বসানো ধাতুর পাত! অবাক বিজ্ঞানীরা

আপডেট: জানুয়ারি ১৭, ২০২২, ৭:৩৩ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক:


মানব সভ্যতার অতীত যেন সমুদ্রের মতো গভীর। না জানি কত রহস্যে লুকিয়ে রয়েছে এর অন্দরে। এমনই এক রহস্যের সন্ধান পেয়েছেন পুরাতত্ত্বের বিজ্ঞানীরা। দু’হাজার বছরের পুরনো এক যোদ্ধার মাথার খুলি খুঁজে পাওয়া গিয়েছে। যাতে ধাতুর পাত বসানো।

গত বছরই এই খুলির সন্ধান পেয়েছিলেন পুরতত্ত্ব বিশারদরা। খুলি দেখেই চমকে যান তাঁরা। মানুষের মাথার খুলির মধ্যে খুবই যতœ সহকারে ধাতুর পাতটি বসানো। বিজ্ঞানীদের ধারণা, কঙ্কালটি পেরুভিয়ান কোনও এক যোদ্ধার। সম্ভবত যুদ্ধেই মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন তিনি। তারপর চিকিৎসা করা হয়। রীতিমতো অস্ত্রোপচার করেই ধাতুর এই পাতটি বসানো হয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এতদিন কেবল বিশেষজ্ঞ এবং কৌতূহলীরাই এই বিশেষ খুলিটির খবরাখবর রাখতেন। কিন্তু সম্প্রতি এটি জনসমক্ষে আনা হয়েছে। রাখা হয়েছে ওকলাহোমার মিউজিয়াম অফ অস্টিওলজি। তাতেই আরও উৎসাহের সৃষ্টি হয়েছে। এই উৎসাহের জেরেই মিউজিয়ামের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে খুলির ছবি পোস্ট করা হয়েছে। আর ক্যাপশনে নিশ্চিত করা হয়েছে, এটি মানুষেরই খুলি।

২০০০ বছর আগে কীভাবে এই ধাতুর পাত মানুষের মাথার খুলিতে বসানো হল, তা নিয়ে নিরন্তর আলোচনা-পর্যালোচনা করে চলেছেন বিজ্ঞানীরা। কেউ কেউ দাবি করেছিলেন, হয়তো ধাতু গলিয়ে মাথার খুলির ভাঙা অংশে ঢেলে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বিজ্ঞানীরা তাতে বিশেষ সহমত নন। তাঁদের মতে আগে থেকে পাতটি তৈরি করা হয়েছে। তারপর অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে মাথার অন্দরে এভাবে ক্ষত সারানোর জন্য ব্যবহার করা হয়েছে। এই খুলির সন্ধান পাওয়ার পরই বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, সেই শল্য চিকিৎসা অত্যন্ত উন্নত ছিল। যুদ্ধক্ষেত্রে দক্ষ চিকিৎসকরা উপস্থিত থাকতেন বলেও মনে করা হচ্ছে। তবে পাতটিতে কোন ধরনের ধাতু ব্যবহার করা হয়েছে। তার কী কী বৈশিষ্ট্য তা এখনও বুঝে উঠতে পারেনি বিশেষজ্ঞরা।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ