২০২৩ সালে ঢাকাই মসলিন

আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২০, ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ফিরে আসছে বিলুপ্ত মসলিন শাড়ি। ২০২৩ সাল থেকে বাংলাদেশের বাজারে মিলবে ঐতিহ্যবাহী এই শাড়ি। শনিবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চলা বস্ত্রমেলায় মসলিন পুনরুদ্ধার প্রকল্পের পরিচালক আইয়ুব আলি এ খবর জানান।
আইয়ুব আলি বলেন, মসলিন বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেন। ২০১৮ সালের ১৮ জুন মসলিন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়, যার নাম ‘বাংলাদেশের সোনালি ঐতিহ্য মসলিন কাপড় পুনরুদ্ধার’। ১২ কোটি ১০ লাখ টাকার এই প্রকল্পে আড়াই হাজার, নারায়ণগঞ্জ, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, বগুড়া এবং কুষ্টিয়ায় মসলিন শাড়ি তৈরির কাজ চলছে। প্রকল্পটি শেষ হবে আগামী বছরের জুনে। এরপর নেয়া হবে তিন বছর মেয়াদি দ্বিতীয় প্রকল্প। আর সেই দ্বিতীয় প্রকল্পে দেশে মসলিন কাপড়ের বাজারের পুরোপুরি সম্প্রসারণ হবে।
আইয়ুব আলি বলেন, ‘দ্রুত এ প্রকল্পের অগ্রগতি হচ্ছে। একটি মসলিন শাড়ি বানাতে কমপক্ষে ৩ থেকে ১০ মাস সময় লাগে। খরচ পড়ে ১ থেকে ৩ লাখ টাকা। বর্তমানে মসলিন শাড়ি বিক্রয় না হলেও, কাজ করে যাচ্ছে তাঁত বোর্ড।’ সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, একটি শাড়ি বানাতে তাঁতির খরচ হয় ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা। আর সুতোর খরচ প্রায় দেড় লাখ টাকা। অপরদিকে, একটি ৫ হাত মসলিন ওড়না ডিজাইনসহ বানাতে খরচ পড়ে প্রায় ৫৪ হাজার টাকা। আর ডিজাইন ছাড়া ১২ হাত ওড়না বানাতে খরচ প্রায় ৭০ হাজার টাকা। ইতোমধ্যে মসলিন শাড়ি বানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে উপহারও দেয়া হয়েছে।
তথ্যসূত্র: আজকাল