‘২১ কোটি ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে’

আপডেট: জুলাই ২৪, ২০২১, ৭:২৪ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক জানিয়েছেন , বিভিন্ন উৎস থেকে আমরা যে ভ্যাকসিনের প্রতিশ্রুতি পেয়েছি এবং কিনেছি তার সংখ্যা ২১ কোটি। অর্থাৎ এখন পর্যন্ত ২১ কোটি ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করেছি। সময়মতো পেলে বাংলাদেশ কোনও দেশ থেকে ভ্যাকসিনে পিছিয়ে থাকবে না। যথাসময়ে ৮০ শতাংশ জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনা যাবে।
শনিবার (২৪ জুলাই) বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতালগুলোর সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, রাশিয়ার ১ কোটি ডোজ স্পুটনিক ভি, চীনের সিনোফার্মের ৩ কোটি ডোজ, অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩ কোটি, কোভ্যাক্সের আওতায় ৭ কোটি ও জনসন অ্যান্ড জনসনের ৭ কোটি ডোজ টিকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আগামী ২৬ বা ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে আরও ৩০ লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা দেশে আসবে। টিকা সংরক্ষণে ২৬টি কোল্ড ফ্রিজার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে আনা হয়েছে। এগুলোয় মাইনাস ৭০ ডিগ্রিতে রাখার মতো টিকাও সংরক্ষণ করা যাবে। বিভিন্ন দেশ থেকে নতুন করে আরও যে টিকা আসবে, সেগুলো সংরক্ষণ করতে কোনও সমস্যা হবে না।
তিনি আরও বলেন, গ্রামে বয়স্ক লোকজনকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে। আমরা নির্দেশনা দিয়েছি। শিক্ষক-ছাত্রদেরও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। সম্মুখসারির যোদ্ধা যারা তাদের পরিবারের ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের টিকা দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সুরক্ষা অ্যাপের মাধ্যমে সেটি দ্রুত চালু হয়ে যাবে বলে আমি আশা করছি।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, হাসপাতালের তথ্য বলছে যারা ভর্তি হচ্ছে ৯০ শতাংশই ভ্যাকসিন নেয়নি। না নেওয়ার কারণে তারা সংক্রমিত হয়ে অসুস্থ হয়েছে। তাদের মধ্যে গ্রামের মানুষ বেশি। ঢাকায় যারা চিকিৎসা নিচ্ছেন তাদের শতকরা ৭৫ ভাগই প্রত্যন্ত এলাকার। তাদের বেশিরভাগই ভ্যাকসিন নেয়নি এবং বয়স্ক মানুষ। গ্রামের বয়স্ক মানুষদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যদি আমরা ভ্যাকসিন দিতে পারি , তাহলে রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা কমবে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এ বি এম খুরশিদ আলম, বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এম এ মুবিন খান ও সাধারণ সম্পাদক ড. আনোয়ার হোসেন খান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন