২৯ মার্চ বাজবে ব্রেক্সিট ঘণ্টা

আপডেট: মার্চ ২১, ২০১৭, ১:১৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে আগামী ২৯ মার্চ ইউরোপীয় ইউনিয়নকে (ইইউ) জানিয়ে দেবেন, তার দেশ আর ২৮ দেশের এই পরিবারে থাকছে না।
ডাউনিং স্ট্রিটের পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী মে ইইউর বাকি ২৭ সদস্য দেশকে চিঠিতে আর্টিকেল ফিফটি নিয়ে যত দ্রুত সম্ভব আলোচনায় বসার আগ্রহের কথা জানাবেন।
ইইউতে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত টিম বারোউ ইউরোপিয়ান কাউন্সিলকে সোমবারই আর্টিকেল ফিফটি নিয়ে আলোচনা শুরুর চূড়ান্ত তারিখ জানিয়ে দিয়েছেন বলেও জানান মের কার্যালয়ের মুখপাত্র।
নয় মাস আগে ঐতিহাসিক গণভোটে ইইউ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পক্ষে রায় দেয় যুক্তরাজ্যবাসী। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে ৫১ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট ব্রেক্সিটের পক্ষে এবং ৪৮ দশমিক ১ শতাংশ ভোট বিপক্ষে পড়ে।
ইউরোপীয় ইউনিয়ন গঠনের পর যুক্তরাজ্যই প্রথম দেশ, যারা এই জোট ছেড়ে বেরিয়ে যাচ্ছে; এই প্রক্রিয়াকে সংক্ষেপে বলা হচ্ছে ব্রেক্সিট।
২০০৯ সালের ১ ডিসেম্বর কার্যকর হওয়া লিসবন চুক্তি ইইউর অন্যতম সাংবিধানিক ভিত্তি।  চুক্তির আর্টিকেল-ফিফটিতে জোট ছেড়ে যাওয়ার কেতা-কানুন সংক্ষেপে বলা রয়েছে।
আর্টিকেল ফিফটি অনুযায়ী, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী জোট ছাড়ার ইচ্ছা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করার পর বিচ্ছেদের দর কষাকষি শেষ করতে দুই বছর সময় পাওয়া যাবে। ওই সময়ে জোটের বাকি ২৭ দেশ সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে আলোচনায় বসবে।
বিচ্ছেদের পর সম্পর্ক কীভাবে এগোবে সেই দর কষাকষির আলোচনা শুরু করবে যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন।  ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের বাকি ২৭ দেশের সামনে তুলে ধরা হবে বিচ্ছেদের খসড়া চুক্তি।
ওই চুক্তি কার্যকরের জন্য অন্তত ২০টি দেশের সম্মতি লাগবে, যারা ইইউর ৬৫ শতাংশ জনগণের প্রতিনিধিত্ব করে।
প্রয়োজনীয় সমর্থন পেলে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের অনুসমর্থন প্রয়োজন হবে সেই বিচ্ছেদ চুক্তিতে।- বিডিনিউজ