৮৫ বছরে বয়সেও কোন ভাতা পান না রাণীনগরের ঠুনি বিবি

আপডেট: এপ্রিল ৫, ২০১৭, ১২:২৬ পূর্বাহ্ণ

আবদুর রউফ রিপন, রাণীনগর



৮৫ বছর বছরের বৃদ্ধা নওগাঁর রাণীনগরের ঠুনি বিবি। কানে শুনতে পান না। বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছে শরীর। সেই সঙ্গে শরীরে বাসা বেঁধেছে নানান রোগ-ব্যাধি। কিন্তু জীবনের শেষ প্রান্তে এসে দাঁড়ালেও তার ভ্যাগে জোটে নি বয়স্ক বা বিধবা ভাতা।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার ১নম্বর খট্টেশ্বর ইউপির পশ্চিম বালুভরা গ্রামের মৃত-সাহেবুল্লা শাহের স্ত্রী ঠুনি বিবি। তার জন্ম ১৯৩২ সালের এপ্রিল মাসে। ঠুনি বিবি তিন ছেলে ও এক মেয়ে। তার স্বামী প্রায় ৪০ বছর আগে মারা গেছেন। ছেলেদের সাংসারিক অবস্থাও ভালো নয়। তিনি বর্তমানে দুই নম্বর ছেলের পরিবারের সঙ্গে আছেন। তার দ্বিতীয় ছেলের চার মেয়ে ও এক ছেলে আছে। ঠুনি বিবির ছেলে গরু-ছাগল পালন ও কৃষি জমিতে কাজ করে কোন মতে সংসার চালান।
ঠুনি বিবির দ্বিতীয় ছেলে আবদুল রাজ্জাক (৬২) জানান, আমরা গরীব মানুষ। মায়ের এই বয়সে যেমন যতœ প্রয়োজন তেমনটি আমরা করতে পারি না। আমরা দিন আনি দিন খাই। আমরা অনেক চেষ্টা করেছি মায়ের একটা ভাতার বিষয়ে। কিন্তু স্থানীয় মেম্বার কিংবা অফিসে গেলেই তারা ঘুষ চায়। তাই আমার মা যদি বয়স্ক কিংবা বিধাব ভাতা পেত তাহলে তার আরো বেশি বেশি যতœ করাও আমাদের পক্ষে সম্ভব হতো। অথচ আমাদের চেয়ে অনেক ভালো ও স্বচ্চল মানুষরা বয়স্ক-বিধাব ভাতার সুবিধা ভোগ করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান পিন্টু জানান, বর্তমানে আমাদের হাতে আর কোন সুযোগ নেই। তাই আগামীতে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমরা তার জন্য একটা ভাতার ব্যবস্থা করার চেষ্টা করবো।
এ বিষয়ে উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো. আবদুল হান্নান জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিলো না। আমরা তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে অতিদ্রুত ঠুনি বিবিকে ভাতার আওতায় আনার জন্য কাজ করবো।