এমপি আনারের শেষ হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ ঘিরে রহস্য!

আপডেট: মে ২৩, ২০২৪, ১২:৩৪ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


কলকাতায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে খুন হয়েছেন ঝিনাইদহের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম! এই খুনের ঘটনা নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। তদন্তে উঠে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। এই কাণ্ডে প্রথম থেকেই আনোয়ারুলের মোবাইলের শেষ টাওয়ার ঘিরে রহস্য দানা বেঁধেছিল।

কলকাতা পুলিশ সূত্রে খবর, শেষবার তাঁর ফোনের লোকেশন ছিল উত্তরপ্রদেশ। খুনের পর সবাইকে বিভ্রান্ত করতেই তাঁর মোবাইলটি উত্তরপ্রদেশে নিয়ে যাওয়া হয় বলে সন্দেহ পুলিশের। এবার প্রকাশ্যে এসেছে আনোয়ারুলের শেষ হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ।

১২ মে কলকাতায় গিয়েছিলেন আনোয়ারুল। উঠেছিলেন বরানগরে পুরনো বন্ধু গোপাল বিশ্বাসের বাড়িতে। ‘বিশেষ কাজে দিল্লি পৌঁছলাম। আমাকে তোমাদের ফোন করার দরকার নেই। আমিই ফোন করে নেব।’ গোপাল বিশ্বাস, নিজের মেয়ে ও আপ্তসহায়ককে একসঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে এই মেসেজ পাঠিয়েছিলেন আনোয়ারুল।

আর এই মেসেজ ও মোবাইলের শেষ টাওয়ার ঘিরেই সৃষ্টি হয়েছে রহস্য। আততায়ীদের মধ্যে একজন আনোয়ারুলকে খুনের পর সবাইকে বিভ্রান্ত করতে তাঁর মোবাইলটি উত্তরপ্রদেশে নিয়ে যান বলে সন্দেহ পুলিশের। খুনের পর খুনি ওই এমপির মোবাইল থেকেই হোয়াটস অ্যাপ করেছিল। এমনই সন্দেহ পুলিশের।

কলকাতা পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, গত ১৩ মে বরানগরে বন্ধু গোপাল বিশ্বাসের বাড়ি থেকে বেরনোর সময় আনোয়ারুল বলেছিলেন, তিনি ওইদিনকেই বরানগরে ফিরে আসবেন। কিন্তু সেদিনই গোপালকে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ করে তিনি জানান, বিশেষ কাজে দিল্লি চলে যাচ্ছেন।

তিনি দিল্লি পৌঁছে ফোন করবেন। তাঁকে ফোন করার প্রয়োজন নেই। এর দুদিন পর ১৫ মে সকাল ১১:২১ মিনিট নাগাদ হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ করে আনোয়ারুল জানান, তিনি দিল্লি পৌঁছে গিয়েছেন। তাঁর সঙ্গে কয়েকজন ভিআইপিও রয়েছেন।

তাই তাঁকে ফোন করার প্রয়োজন নেই। বন্ধু গোপালের সঙ্গে ওই একই মেসেজ তিনি বাংলাদেশে তাঁর বাড়িতে ও আপ্তসহায়ককে পাঠান। পুলিশ তদন্ত করে জেনেছে, উত্তরপ্রদেশের মুজফফরপুরে মোবাইলের শেষ টাওয়ার ছিল। মাঝে মাঝে মোবাইল খোলা হচ্ছিল। তবে বেশিরভাগ সময়ের জন্যই বন্ধ করে রাখা হয়েছিল ফোনটি।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন অনলাইন

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ