কন্যার ক্যান্সারে বিপর্যস্ত আনসার ও ভিডিপির দলনেত্রী এলিনা

আপডেট: জুলাই ৬, ২০১৭, ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


এলিনা খাতুন আনসার ভিডিপির একজন সফল দলনেত্রী। ১৯৯৪ সাল থেকে নগরীর ছয় নম্বর ওয়ার্ড দলনেত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। প্রায় ২৩ বছর হতে চললো তিনি এই সর্ববৃহৎ সংগঠনের সংগে জড়িত। অত্যন্ত পরিশ্রমী হিসেবে তার খ্যাতি আছে। ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে পুরস্কারও পেয়েছেন কয়েকবার। এক ছেলে ও এক মেয়ের ছোট্ট পরিবারে ছেলে মনতাকিম আল সেফান চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় নগরীর কলেজিয়েট স্কুল থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। মেয়ে  স্নেহা তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। কিন্তু তবুও এতটুকু শান্তি নেই মনে। পুরো পরিবার জুড়ে বিপর্যন্ত অবস্থা। ইতিমধ্যেই নিজের ঘরবাড়ী বিক্রি হয়ে গেছে। তাই ভাড়া বাসাই এখন আশ্রয়স্থল। স্বামী রেজাউল করিম অটো চালায়। তাই দিয়ে টেনে হিঁচড়ে চলে সংসার।
দলনেত্রী এলিনার নিম্নমধ্যবিত্ত সুখী পরিবারের সমস্ত সুখ গ্রাস করে ফেলেছ শিশুকন্যা স্নেহার ক্যান্সার। ছয় বছরের শিশু স্নেহার দেহে আজ থেকে প্রায় তিনবছর আগে বাঁসা বাঁধে ক্যান্সার নামক মরণব্যাধি। এখনও তার জন্যে কেমোথেরাপি দিতে হয়। আর প্রত্যেকবার কেমোথেরাপির জন্যে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়েই খরচ পড়ে প্রায় লক্ষাধিক টাকা। আর আদরের কন্যা স্নেহার চিকিৎসা খরচ চালাতে গিয়ে নিঃস হয়ে পড়েছে আমাদের দক্ষ দলনেত্রী এলিনা খাতুন। আদরের কন্যা স্নেহার চিকিৎসার জন্যে ইতিমধ্যেই ঘরবাড়ি বিক্রি করে প্রায় ২০ লাখ টাকা খরচ হয়ে পড়েছে। বিপর্যন্ত এই পরিবারটির পাশে দাঁড়ানোর জন্যে আকুল আবেদন জানানো হয়েছে।
চলতি বছরে অনুষ্ঠিত জাতীয় সমাবেশে সেবা পদকপ্রাপ্ত সুফিয়া খাতুন হচ্ছেন এলিনা খাতুনের আপন খালা। এই খালায় তাকে নিয়ে আসে দেশের সর্ববৃহৎ সংগঠন আনসার ভিডিপিতে। সেই ১৯৯৪ সালে। বাছাই হওয়ার পর সফিপুর আনসার অ্যাকাডেমিতে ৩০ মে থেকে ১৯ জুন পর্যন্ত ২১ দিন মেয়াদী দলনেত্রী প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করার পর রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ছয় নম্বর ওয়ার্ড দলনেত্রী হিসেবে নিয়োগ পান। আনসার ভিডিপির সংগে সেই থেকে তার পথ চলা। তারপর সতেজকরণ, উলবুননসহ আরো প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেকেআরো সমৃদ্ধ করেছে এলিনা।
এক প্রশ্নের জবাবে আমাদের দলনেত্রী এলিনা খাতুন জানায়, আনসার ভিডিপি সংগঠনের সংগে জড়িত হওয়ার পর থেকে তার আত্মমর্যাদা বেড়েছে। ওয়ার্ডের সবাই তাকে চিনে জানে। সামাজিক অনুষ্ঠানগুলোতে ডাক পড়ে। নিজে থেকেও মাদক ও জংগী বিরোধীসহ নানা অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকে। এর মধ্যেই থানা ও জেলা সমাবেশগুলোতে শ্রেষ্ঠ কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ বাইসাইকেল ও সেলাই মেশিন পুরস্কার পেয়েছে। তার ভাষ্য, আনসার ভিডিপি আমাকে অনেক দিয়েছে। আমিও এই সংগঠনের সংগে আমৃত্যু জড়িত থেকে দেশ ও জাতির সেবা করতে চাই। আরো উজ্জ্বল করতে চাই সাংগঠনিক ভাবমূর্তি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ