কিছুই করেনি কেন্দ্র, তিস্তায় নারাজ মমতা আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদন

আপডেট: অক্টোবর ১৪, ২০১৬, ১১:৪৪ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
উরি হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের সার্ক বয়কটের সিদ্ধান্তকে প্রথম সমর্থন করেছিল বাংলাদেশের শেখ হাসিনা সরকার। এখন বাংলাদেশ সরকারের দাবি, ভারত এ বার অবিলম্বে তিস্তা চুক্তিতে সই করুক। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজি থাকলেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিন্তু এখনও তিস্তা চুক্তিতে নারাজ।
গোয়ায় ‘ব্রিকস’ সম্মেলনে যোগ দিতে ভারতে আসছেন শেখ হাসিনা। ১৬ অক্টোবর গোয়ায় নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে তাঁর বৈঠক হওয়ার কথা। তার আগে তিস্তা নিয়ে মমতার মন বুঝতে তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। মমতা তাঁদের জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নন। ছিটমহল বিনিময়ের ক্ষেত্রে তিনি সম্মতি দিয়েছিলেন। মোদি যখন শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে বাংলাদেশে গিয়েছিলেন, তখন তিনিও হাসিনার আমন্ত্রণে সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের, বিশেষত উত্তরবঙ্গের কথা ভেবেই তিনি এখনও তিস্তা চুক্তিতে সই করতে রাজি নন।
মমতা কেন্দ্রকে জানিয়েছেন, ঢাকা সফরের সময় তিস্তা নিয়ে কথা হয়েছিল। পশ্চিমবঙ্গের সমস্যার কথা উঠেছিল। তার পরে এত দিন হয়ে গিয়েছে। কিন্তু মোদী সরকার তিস্তা চুক্তি রূপায়ণের আগে পশ্চিমবঙ্গের কথা ভেবে কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি।
তিস্তা নিয়ে মমতার আপত্তির কারণ কী? মমতার অভিযোগ, সিকিমে মুড়ি-মুড়কির মতো অসংখ্য জলবিদ্যুৎ প্রকল্প গড়ে তোলা হয়েছে। তার মধ্যে ১০ মেগাওয়াট, এমনকী ৪ মেগাওয়াটের মতো প্রকল্পও আছে! তিস্তার উপর এ ধরনের প্রায় শতাধিক প্রকল্প তৈরি হয়েছে। পাশাপাশি ৮টি বড় বাঁধ তৈরি হয়েছে। সিকিম এ ভাবে এলোপাথাড়ি বাঁধ দেয়ায় শুখা মরসুমে তিস্তায় জলের সঙ্কট হচ্ছে। আর বর্ষায় সিকিম বাঁধ বাঁচাতে জল ছাড়লে ভেসে যাচ্ছে উত্তরবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকা। সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন চামলিঙের কাছে এ নিয়ে অভিযোগ করেছিলেন মমতা। প্রধানমন্ত্রী, সুষমা, রাজনাথকেও জানিয়েছিলেন। ঢাকার সেই সফরের পরে এক বছরেরও বেশি কেটে গেলেও সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে এক সঙ্গে বসিয়ে তিস্তা নিয়ে কোনও বৈঠক করেননি মোদি। সিকিমকেও কেন্দ্রের তরফে বাঁধ নিয়ে সতর্ক করা হয়নি।
দ্বিতীয়ত, শুখা মরসুমে তিস্তায় জলসঙ্কটের জন্য উত্তরবঙ্গে জলের সমস্যা যাতে না হয়, সে জন্য ছোট ছোট জলাধার গড়ার কথা বলা হয়েছিল। মমতা নিযুক্ত নদী বিশেষজ্ঞ কল্যাণ রুদ্র কমিটি এই প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু এখনও কেন্দ্র এ নিয়ে উদ্যোগী হয়নি। উত্তরবঙ্গে বিকল্প জলপ্রকল্পের জন্য কোনও বিশেষ আর্থিক বরাদ্দও হয়নি।
তৃতীয়ত, ফরাক্কায় বাঁধের ফলে ভাগীরথীর জলের একটি বড় অংশ বাংলাদেশে চলে যায়। পশ্চিমবঙ্গ বঞ্চিত হয়। এখন তিস্তা নিয়েও নানা সমস্যা হচ্ছে। তা ছাড়া তিস্তার জন্য কার্সিয়াং, কালিম্পং-সহ নানা জায়গায় প্রায়ই ধস নামছে। সম্প্রতি মমতা কালিম্পং-এ গিয়ে তিস্তা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন। অফিসারদের সঙ্গে কথাও বলেন। মমতার কথায়, ‘‘প্রকৃতিকে শাসন করার একটি বিজ্ঞান আছে। যা ইচ্ছে তাই করলে প্রকৃতি প্রতিশোধ নেয়। এখন সেটিই কালিম্পং, কার্সিয়াং-এ হচ্ছে।’’
মমতার বক্তব্য, এই পরিস্থিতিতে তিস্তা নিয়ে অভ্যন্তরীণ সমস্যাগুলি আগে মেটাক কেন্দ্র। তার পর অন্য কথা। মমতার নির্দেশে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিবকে এই পরিস্থিতি জানিয়ে চিঠিও লিখেছেন মুখ্যসচিব।
সব মিলিয়ে তিস্তা জট কাটার পরিস্থিতি এখনও তৈরি হয়নি। মোদি চাইলেও মমতার মত না মিললে এই চুক্তি সই হবে না। ইউপিএ জমানায় মনমোহন সিংহ এবং তাঁর শীর্ষ আমলারাও মমতাকে বোঝানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছিলেন। এ বারে হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে মোদি আশ্বাস দিতে পারেন, তিনি তিস্তা নিয়ে মমতার সঙ্গে কথা বলবেন। হয়তো দু’জনে পরবর্তী সময়ে কথাও হবে। কিন্তু তাতেও মমতার রাজি হওয়ার মতো পরিস্থিতি এখনও তৈরি হয়নি।-