ছোটমনি নিবাস-এর সোনামনিদের পাশে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ

আপডেট: ডিসেম্বর ৮, ২০২১, ১০:১৩ অপরাহ্ণ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:


রাজশাহী নগরীর বর্ণালী মোড় এলাকায় অবস্থিত ছোটমনি নিবাসের পরিবার-পরিজনহীন শিশুদের মাঝে একটু আনন্দ ও ভালবাসার দ্যুতি ছড়িয়ে দিতে গত মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুর ১২ টায় সেখানে উপস্থিত হয় বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ । শৈশবের সবচেয়ে আনন্দঘন দিন; জন্মদিনের আনন্দ দিতে শিশুদের নিয়ে কেক কাটা এবং উপহারস্বরূপ শীতের পোশাক বিতরণের মধ্যে দিয়ে পরিবার বঞ্চিত অনাথ শিশুদের নিয়ে আনন্দের এক আয়োজন করে ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রী[রা।

শিক্ষার্থীদের চোখে দেখা যায় অনাথ এই শিশুদের জন্য স্নেহ, মায়া। তারা নিজ হাতে শিশুদের পরিয়ে দেয় শীতের নতুন পোশাক। পরিবারের সদস্যের মতো পাশে থেকে তারা পরিবেশন করে বিভাগের পক্ষ থেকে দুপুরের খাবার। লেখাপড়ার পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতায় আবদ্ধ হয়ে উঠে তাদের মন। ব্যবসা প্রশাসন বিভাগের এই আয়োজনে পুরো “ছোটমনি নিবাস” মুখরিত হয়ে ওঠে শিশুদের আনন্দ ও কোলাহলে। শিশুদের আনন্দে আনন্দিত হন ছোটমণি নিবাসের সংশ্লিষ্ট সবাই।
ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সম্মানিত বিভাগীয় প্রধান ড. কানিজ হাবিবা আফরিন বলেন, ‘শিশুদের প্রতি ভালোবাসা, সামাজিক দায়িত্ববোধ ও শিক্ষার্থীদের সহানুভূতিশীল করে গড়ে তোলার লক্ষ্যেই ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ পরিবারের এই আয়োজন।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা যেন সবাই আমাদের নিজেদের জায়গা থেকে মানবিক হই। অনাথ শিশুদের পরিবার হতে না পারলেও পারিবারিক স্নেহের স্পর্শ আমরা চাইলেই দিতে পারি, তাদের শৈশবকে করতে পারি আনন্দময়।’

ছোটমনি নিবাসের দায়িত্বরত ব্যক্তিবর্গ তাদের আন্তরিক স্নেহ, ভালোবাসা দিয়ে বাবা-মা হারা শিশু গুলোকে বড় করে তুলছেন। তাদের এই আন্তরিক প্রচেষ্টা নিঃসন্দেহে সম্মান ও প্রশংসার দাবিদার। আজকের শিশুই আগামীর কর্ণধার। প্রতিটি শিশুর রয়েছে একটি সুন্দর জীবন যাপনের অধিকার। সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও ভালোবাসা পারে এই শিশুদের মুখে হাসি ফোটাতে এবং তাদের জীবনকে বর্ণময় করে তুলতে। আমরা চাই প্রতিটি শিশু বেড়ে উঠুক হাসি, আনন্দ এবং সুনিশ্চিত ভবিষ্যতের আশায়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ