জমে উঠেছে পুঠিয়ায় রথমেলা

আপডেট: জুলাই ২, ২০১৭, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

পুঠিয়া প্রতিনিধি


জমে উঠেছে পুঠিয়ার ঐতিহ্যবাহী রথ মেলা-সোনার দেশ

রাজশাহীর পুঠিয়ায় মাসব্যাপী রথমেলা জমে উঠেছে। পুঠিয়ার রাজবাড়ী মাঠে অনুষ্ঠিত মেলায় ঈদের পরের দিন থেকেই মানুষের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। নাটোরের নলডাঙ্গা থেকে এসেছেন কার্তিক দাস । তিনি বলেন, প্রত্যেক বছরেই এই রথের মেলায় আসি। কারণ এই ঐতিহ্যবাহী মেলা আমাদের শিরা উপশিরায় মিশে আছে। এই রথের মেলাকে ঘিরে বিভিন্ন ধরণের খেলা প্রদর্শন, ফার্নিচার ও কসমেটিকের ব্যবসাও জমজমাট। শুধু কার্তিক দাসের এ কথা নয়, এ কথা আরো অনেকের। পুঠিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এডভোকেট সুশান্ত কুমার ঘোষ বলেন, আমি ছোট বেলা থেকেই এই মেলা দেখে আসছি। কারণ এই রথ মেলা আমাদের সংস্কৃতির ঐতিহ্যও বটেও। এই মেলা হিন্দু সম্প্রদায়ের হলেও ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে এই মেলায় অংশ নেন। তিনি স্মতিচারণ করে বলেন, রথমেলায় আলকাপ গান, যাত্রাপালা, কবিগানসহ নাটকের আয়োজন থাকতো। এমনকি আমরাও অভিনয় করতাম। সারারাত মেলা প্রাঙ্গন মুখর থাকতো। মেলা কমিটি পুনরায় ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। তাদেরকে অভিনন্দন জানাই। নাটোরের শিলা রাণী বলেন, এই মেলা বড়দের পাশাপাশি শিশুরাও চিত্ত বিনোদিনের সুযোগ পাচ্ছে। বিশেষ করে শিশুরা নাগর দোলা, মোটরসাইকেল খেলা উপভোগ করছে। পুঠিয়া উপজেলার পীরগাছা এলাকার ফেরদৌস বলেন, আমি ঝলমলিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণিতে পড়ি। এই মেলায় ঘুরতে এসে ভালই আনন্দ পেয়েছি। কারণ গ্রাম বাংলা থেকে আমাদের সংস্কৃতি হারিয়ে যাচ্ছে। তাই এই মেলা যারা আয়োজন করেছেন তাদেরকে অভিনন্দন জানাই। পুঠিয়া রথমেলা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ বলেন, রথমেলা ২৫ জুন থেকে শুরু হলেও গত ২৭ জুন পুঠিয়া-দুর্গাপুর আসনের সাংসদ আবদুুল ওয়াদুদ দারা এই মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। মেলা সকাল ১০ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত খোলা থাকে। মেলায় আগত দর্শনার্থীদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এবিষয়ে পুঠিয়া পৌরসভার মেয়র রবিউল ইসলাম রবি বলেন, ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় এই রথ মেলার আয়োজন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে। এইজন্য সকল প্রকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় মেলার কাজ সম্পাদন করা হচ্ছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ