দশর্কের কাছে প্রশংসিত ‘সুলতানা বিবিয়ানা’

আপডেট: এপ্রিল ৫, ২০১৭, ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঢালিউডে মুক্তিপ্রাপ্ত মাত্র কয়েকটি ব্যবসাসফল সিনেমা ছাড়া, বেশিরভাগ সিনেমা নকল গল্পের কারণে দর্শকের কাছে ঢাকাই সিনেমার গ্রহণযোগ্যতা অনেকাংশে কমিয়ে দিয়েছে।বহুদিন পরে দেশীয় মৌলিক গল্পের কারণে প্রেক্ষাগৃহে ‘সুলতানা বিবিয়ানা’ সিনেমাটি দর্শক টানতে পারছে বলে দাবি করলেন বেশ কয়েকজন প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক।
শুক্রবার সারাদেশে মুক্তি পেয়েছে বাপ্পী-আচঁল অভিনীত সিনেমা ‘সুলতানা বিবিয়ানা’। ‘আমাদের গল্পে আমাদের সিনেমা’ এই স্লোগান নিয়ে সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন নবাগত নির্মাতা হিমেল আশরাফ। রাজধানীর মধুমিতা, বসুন্ধরা স্টার সিনেপ্লেক্স, সনি, জোনাকি সহ সারাদেশের ৫১টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি। মুক্তির আগে থেকেই বহুল আলোচিত সিনেমাটির ব্যবসায়িক হালচাল বক্সঅফিসে কেমন প্রভাব ফেলেছে তা জানতেই রাজধানীর বেশ কয়েকটি প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপকের মুখোমুখি হয়েছিলো গ্লিটজ।
গল্পের কারণে সিনেমাটি দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। এমনটাই মনে করেন রাজধানীর বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্সের ব্যবস্থাপক (মিডিয়া ও বিপণন) মেছবাহ উদ্দিন আহমেদ।
গ্লিটজকে তিনি বলেন, “শুক্রবার সিনেমাটি মুক্তির পর থেকে আজ রবিবার পর্যন্ত সিনেমার টিকেটে বিক্রির পরিমাণ ভালোই হচ্ছে। মাত্র তিনদিন হলো সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছে। তবে এই সিনেমার ক্ষেত্রে সবচেয়ে লক্ষণীয় দিক হচ্ছে, সিনেমা চলাকালীন সময়ে এখনও পর্যন্ত কোনো দর্শককে বিরতির আগে কিংবা পরে সিনেমা অর্ধেক দেখে চলে যেতে আমরা দেখিনি। বহুদিন পরে এমন একটি সিনেমা পেলাম যে সিনেমাটি দর্শকরা দেখছেন। এর অর্থ সিনেমার গল্প দর্শককে ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে, যা একটি সিনেমার জন্য শুভলক্ষণ। আমাদের প্রত্যাশা সিনেমাটি আস্তে আস্তে আরো বেশি দর্শক টানতে সক্ষম হবে।”
এই সিনেমা ঘিরে ঢাকাই সিনেমার গল্পে বহুদিন পরে নতুনত্বের বিষয়টি ফুটে উঠেছে। এমনটাই মনে করছেন রাজধানীর মধুমিতা প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক রেজাউল করিম।
গ্লিটজকে তিনি বলেন, “সাধারণত গল্পে নায়ক-নায়িকার করুণ পরিণতি যদিও দর্শকরা কম পছন্দ করে কিন্তু তারপরেও সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে ভালোই দর্শক টানতে সক্ষম হয়েছে। বাপ্পীর তো একটা ভক্তশ্রেণি ইতমধ্যে তৈরি হয়েছে। অনেকদিন পরে আচঁলের সিনেমা মুক্তি পেলো। সবকিছু মিলিয়ে বিভিন্ন কারণে প্রেক্ষাগৃহে সিনেমাটি দর্শক টেনেছে।”
তিনি আরো বলেন, “কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে গল্পের উপস্থাপনে বেশ আধুনিকতার ছোঁয়া ছিলো। সিনেমার গল্পের গাঁথুনি যদি মজবুত করা যায় তাহলে বেশিরভাগ সিনেমাই ভালো দর্শক টানতে পারবে।”
সিনেমা ব্যবসার মন্দা-বাজারে ‘সুলতানা বিবিয়ানা’ মুক্তির পর থেকেই প্রেক্ষাগৃহে ভালো দর্শক টানতে সক্ষম হয়েছে। এমন চিত্রই গ্লিটজের কাছে তুলে ধরলেন সনি প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক সামাদ।
তিনি বলেন, “মুক্তির পর থেকেই শনিবার রাত পর্যন্ত টিকেটের বিক্রির রিপোর্ট ভালোই। শুক্র ও শনিবার বিকেল ও রাতের শো হাউসফুল গিয়েছে। দর্শকরা নকল গল্প দেখতে দেখতে এখন বিরক্ত। এই সিনেমাটা প্রেমের করুণ কাহিনি নির্ভর হলেও কেউ এটাকে নকল গল্পের সিনেমা বলতে পারেনি।” সামাদ আরো বলেন, “সত্যি বলতে আমাদের সিনেমার ব্যবসা এমনিতেও ভালো নেই। এমন ধরণের মৌলিক গল্পের সিনেমাগুলো যদি ধারাবাহিকভাবে নির্মাণ হয় তাহলে আবারো দর্শকরা প্রেক্ষাগৃহমুখী হবে এবং আমাদের ব্যবসায় সুদিন ফিরে আসবে।” রোমান্টিক প্রেমের কাহিনি নিয়ে গড়ে উঠেছে ‘সুলতানা বিবিয়ানা’ সিনেমার গল্প। সিনেমার গল্প লিখেছেন প্রয়াত ফারুক হোসেন। এ সিনেমায় বাপ্পী-আঁচল ছাড়াও অভিনয় করেছেন অমিত হাসান, শহীদুজ্জামান সেলিম, মামুনুর রশীদ প্রমুখ। সিনেমাটি প্রযোজনা করেছে ভার্সেটাইল মিডিয়া।