পত্নীতলায় চাষ হচ্ছে মরুভূমির ত্বীন ফল

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১, ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ

ইখতয়িার উদ্দীন আজাদ, পত্নীতলা:


নওগাঁর পত্নীতলায় পবিত্র কোরআনে সূরা আত-ত্বীন র্বণিত মরুভূমির মিষ্টি ফল ত্বীন ফল শোভা পাচ্ছে। পরীক্ষা মূলকভাবে উপজেলার ‘তালহা এগ্রো র্ফার্ম’ নামের একটি ফার্মে সাতটি ত্বীন গাছ চাষ করা হচ্ছে।।

রসে ভরপুর, মিষ্টি ও সুস্বাদু আগা থকেে গোড়া পর্যন্ত ডুমুর আকৃিতির এই ফল সবার দৃষ্টি কেড়েছে। গাছের প্রতিটি পাতার গোড়ায়-গোড়ায় ত্বীন ফল জন্মে থাকে। ত্বীন একটি পুষ্টি সমৃদ্ধ সুস্বাদু ফল। যা মরু অঞ্চলে ভালো জন্মে। এখন বাংলাদেশের মাটি ও আবহাওয়ার সঙ্গে বেশ মানিয়ে নিয়েছে ত্বীন।

তালহা এগ্রো র্ফাম এর প্রতিষ্ঠাতা জাকির হোসেন ওরফে মিলন বলেন, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে ঢাকার গাজীপুর থেকে পরীক্ষা মূলকভাবে চাষের জন্য ত্বীন গাছের চারা নিয়ে আসেন। ত্বীন ফলের চারা আনার সময় এটির ফলন হবে কিনা সেটি নিয়েও সংশয়ে ছিলেন তিন।

এরপর নিজস্ব তালহা এগ্রো র্ফাম-এ নির্দিষ্ট তাপমাত্রা ও র্আদ্রতা বজায় রেখে চারা রোপণ করেন। মাত্র তিন মাসে গাছে ফল আসতে শুরু করে পরর্বতী ছয় মাসের ব্যবধানে একটি করে ফল পাকতে শুরু করেছ। এখন তার মুখে স্থস্তির হাসি।

ত্বীন চাষী মিলন আরো বলেন, বাগান সম্প্রসারণ করতে আমি গাছে কলম করতে শুরু করবো। কলমগুলো করে বাগান সম্প্রসারণের পাশাপশি সেগুলো স্থানীয় বাজারে বিক্রি করবো। ত্বীন ছাড়াও বাগানে বিভিন্ন প্রজাতির আম, পঁপে, কাঁঠাল, আপেল, এলাজ, মাল্টাসহ বিদেশি অনেক ফল গাছ রয়েছে ।

র্বতমানে বাজারে ফলটি র চাহিদা অনেক, দামও ভালো। প্রতিকেজি ফল বিক্রি হয় ৮’শ থেকে এক হাজার টাকা দরে। পাকলে লাল ও হলুদাভা রঙ ধারণ করে আর্শ্চয এ ফল। আগা থেকে গোড়া র্পযন্ত ডুমুর আকৃতির এই ফল সবার দৃষ্টি কেড়ছে।ে
তিনি বলেন, সামনে বছরের মধ্যেই বাণিজ্যকভাবে এক বিঘা জমিতে ত্বীন চাষ করবেন।

উপজলোর সদর নজপিুর পৌর শহর হতে ত্বীন ফলরে বাগান দখেতে আসা আব্দুল আজজি জানালনে, তনিি ত্বীন বাগান দখেে অভভিূত হয়ছেনে। নজিে প্রাথমকিভাবে ২০ শতাংশ জমতিে ত্বীন বাগান করবনে বলে মনে করছনে।

উপজলো উপসহকারী কৃষি অফসিার আকবর হোসনে বলনে, পরীক্ষা মূলকভাবে ত্বীন ফলরে প্রজক্টেটরি উদ্যোগ গ্রহণ হয়ছে।ে উপজলোয় বাণজ্যিকিভাবে বড় পরসিরে এখনো ত্বীন ফল চাষ কোথাও করা হয়ন।ি আমি এই প্রকল্পটি পরর্দিশন করে বভিন্নি ধরণরে পরার্মশ দয়িে আসছ।ি রোগ বালাই নাই বললইে চল।ে

ত্বীন বাগান ও চাষ পদ্ধতি জানতে এলাকার বভিন্নি গ্রামরে চাষ,ি সাধারণ মানুষ বাগানটি দখেতে ভড়ি জমাচ্ছনে। পরর্দিশনে আসা বভিন্নি চাষি ও সাধারণ মানুষ ত্বীন ফল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছনে।

পত্নীতলা উপজলো কৃষি অফসিার কৃষবিদি প্রকাশ চন্দ্র সরকার বলনে, আরবরে ডুমুর বাংলাদশেরে মানুষরে কাছে নতুন। র্বতমানে পরীক্ষা মূলকভাবে চাষ করা হচ্ছ।ে ভালো ফলাফল পলেে পর্রবতীতে বস্তির গবষেণা করা হব।ে

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ