পবা-মোহনপুরে স্বতঃস্ফূর্তভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত নৌকার ১০, স্বতন্ত্র ৩ চেয়ারম্যান

আপডেট: নভেম্বর ২৮, ২০২১, ১০:৩৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীর দুই উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো। ভোট গণনা শেষে বিজয়ীদের নাম বেসরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়েছে। ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ১০, আ.লীগ বিদ্রোহী দুই ও একজন জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

রাজশাহীর পবা উপজেলার সাত ইউনিয়নের মধ্যে হরিপুর ইউনিয়নে বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা সমর্থিত প্রার্থী রেজভী আল হাসান মঞ্জিল। এছাড়া বেসরকারিভাবে ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ৪ জন, আ.লীগ বিদ্রোহী ২ জন ও ১ জন জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে। অপরদিকে, মোহনপুর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের সবক’টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন, মৌগাছি ইউনিয়নে আল আমিন বিশ্বাস, ধুরইল ইউনিয়নে দেলোয়ার হোসেন, রায়ঘাটি ইউনিয়নে বাবুল হোসেন, ঘাষিগ্রাম ইউনিয়নে আজহারুল ইসলাম, বাকশিমইল ইউনিয়নে আব্দুল মান্নান ও জাহানাবাদ ইউনিয়নে হযরত আলী।

ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে পবা উপজেলায় বিজয়ীরা হলেন, হুজুরীপাড়া ইউনিয়নে বিজয়ী নৌকা প্রতীকে গোলাম মোস্তফা। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী দেওয়ান রেজাউল করিম (মটরসাইকেল)। দামকুড়া ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন নৌকা প্রতীকে রফিকুল ইসলাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি স্বতন্ত্রপ্রার্থী আব্দুস সালাম। বড়গাছী ইউনিয়নে বিজয়ী নৌকা প্রতীকে শাহাদত হোসাইন সাগর। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি সমর্থিত স্বতন্ত্রপ্রার্থী সোহেল রানা।

এছাড়াও বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন দর্শনপাড়া ইউনিয়নে শাহাদত হোসেন সাব্বির (আনারস)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বর্তমান চেয়ারম্যান নৌকা প্রতীকের কামরুল হাসান রাজ। পারিলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী সাঈদ আলী মোরশেদ (ঘোড়া)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী সাইফুল বারী ভুলু (আনারস) ও হড়গ্রাম ইউনিয়নে বিজয়ী জামায়াত নেতা স্বতন্ত্রপ্রার্থী আবুল কালাম আজাদ (অটো-রিকশা) বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের ফারুক হোসেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ