পুনরায় মেয়রের দায়িত্ব নিলেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন আসুন, একসাথে এগিয়ে যাই

আপডেট: অক্টোবর ১৫, ২০২৩, ১১:২৩ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


তৃতীয় মেয়াদে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব নিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। রোববার (১৫ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টায় নগর ভবনে মেয়রের দফতরকক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সেসময় সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন রাসিক মেয়রকে লিটনকে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন । দায়িত্ব গ্রহণের পর দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন রাবির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক, মুহা. বারকুল্লাহ বিন দুরুল হুদা।

এ সময় রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিন আমি রাজশাহীর সর্বস্তরের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। গত মেয়াদে করোনা মহামারি, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে উন্নয়ন কাজে বাধাগ্রস্ত হয়েছি। এবার সকল বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে আগামী পাঁচটি বছর নিবিড়ভাবে রাজশাহীর সার্বিক উন্নয়নে করতে চাই। আমি আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে চাই, বিশেষ করে কর্মসংস্থানের বিষয়টি। রাজশাহীবাসীর প্রতি আমার আহ্বান, আপনারা ধৈর্য্য ধরেন, আমাকে সময় দিবেন, যে আস্থা রেখেছেন, আমি তার প্রতিদান দিতে চাই, সেটি দিতে আমি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আসুন, আমরা একসাথে এগিয়ে যাই।

তিনি বলেন, রাজশাহীর টেকসই উন্নয়নে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা প্রয়োজন। আমাদের সে পরিকল্পনাও করা আছে। শুধু এখন বাস্তবায়ন হবে। আগামী ৫ বছরে রাজশাহী নগরী পুরোটা পরিবর্তন করা হবে। এজন্য সবার সহযোগিতা কাম্য। আসুন সবাই মিলে এক সাথে এগিয়ে যায়। একটি সুন্দর নগরী উপহার দেয়।

এর আগে রোববার (১৫ অক্টোবর) দুপুরে নগর ভবনের গ্রিন প্লাজায় নির্বাচিত রাসিক এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত ৪০ জন কাউন্সিলরের অভিষেক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে নির্বাচিত রাসিক মেয়র ও কাউন্সিলরগণকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করে নেওয়া হয়।

অভিষেক অনুষ্ঠানে রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, নগরীর হাইটেক পার্কের পশ্চিমে পদ্মা নদীর ধারে নৌবন্দর স্থাপন করতে যাচ্ছি। ভারতের মুর্শিদাবাদের ধূলিয়ান ও মায়া থেকে রাজশাহী পর্যন্ত নৌ-রুট চালু হলে ভারত থেকে পাথরসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানি করা যাবে। রাজশাহী থেকে বিভিন্ন পণ্য রফতানি করা হবে। আগামী দিনে এই নৌ-বন্দর হবে রাজশাহী বিভাগের অর্থনৈতিক প্রাণকেন্দ্র। আগামী ৩ থেকে ৬ মাসের মধ্যে নৌরুটটি প্রাথমিকভাবে চালু হবে।

রাসিক মেয়র বলেন, স্মার্ট রাজশাহী গড়তে প্রকল্প শুরু হচ্ছে। আগামী ১৯ অক্টোবর হাইটেক পার্কে স্মার্ট কর্মসংস্থান মেলা হবে। সেখানে স্পটেই অনেক তরুণ-তরুণীর চাকরি হবে। এটি আমার প্রতিশ্রুতি সূচনামাত্র।

তিনি আরও বলেন, শিল্পায়নের জন্য রাজশাহীতে বিসিক শিল্পনগরী-২ তৈরি করা হয়েছে। সেখানে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে প্রায় ৩০০ প্লট বরাদ্দ প্রদান করা হবে। সন্ধ্যায় ৩০টি প্লট বরাদ্দ প্রদান করা হবে। রাজশাহীর উন্নয়ন হয়েছে, এটি চলমান থাকবে। আমি আপনাদের সকলের সহযোগিতা চাই।

বিপুল ভোটে মেয়র নির্বাচিত করায় সবাইকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, লক্ষ লক্ষ মানুষ যেভাবে আমাদের ভালোবেসেছেন, দোয়া করেছেন, আস্থা রেখেছেন, মাঝে মাঝে মনে হয় এর প্রতিদান দিতে পারবো তো? আমি গত দুই মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছি। রাজশাহীতে যারা বেড়াতে আসেন, শহরের পরিচ্ছন্নতা ও সৌন্দর্য্য দেখে মুগ্ধ হন, তারা রাজশাহীকে দেশের সেরা নগরী বলেন।
মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আমি কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সকলের উদ্দেশ্যে বলি যখন নগর ভবনে প্রবেশ করবেন, রাজনৈতিক পরিচয়ের পোশাকটি খুলে প্রবেশ করবেন। সবাইকে সমানভাবে নাগরিক সেবা প্রদান করবেন। নগর ভবন থেকে বেরিয়ে আপনি পছন্দের দল করতে পারবেন, সেটি আপনার বিষয়।

রাসিক মেয়র বলেন, এবার আমার নির্বাচনী স্লোগান ছিল ‘উন্নয়ন দৃশ্যমান, এবার হবে কর্মসংস্থান।’ এবার আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে এটি উল্লেখ থাকবে। আর নির্বাচনে সারাদেশে যে শহরটিকে শোকেসিং করা হবে, সেটি হবে রাজশাহী।

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অভিষেক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র আবদুল হাদী, বাংলাদেশ আ’লীগ উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও রাবির সাবেক উপাচার্য প্রফেসর আবদুল খালেক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর গোলাম সাব্বির সাত্তার, রাজশাহী মহানগর আ’লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর রুহুল আমিন প্রামাণিক, রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মনসুর রহমান, রাজশাহীর সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আদিবা আঞ্জুম মিতা, আ’লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা,সংরক্ষিত ওয়ার্ড-১ কাউন্সিলর তাহেরা খাতুন মিলি, রাসিকের ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল মমিন।

অনুষ্ঠানে মেয়রের সহধর্মিণী ও বিশিষ্ট সমাজসেবী ও নারীনেত্রী শাহীন আকতার রেণী, অনুষ্ঠানমঞ্চে আ’লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বিএমডিএ চেয়ারম্যান বেগম আখতার জাহান, রাজশাহী জেলা আ’লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল কুমার সরকার, রাজশাহী ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাকীর হোসেন, রেলওয়ে পশ্চিমের জিএম অসীম কুমার তালুকদার, আরএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বিজয় বসাক, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার জসিম উদ্দিন হায়দার, রাবির উপ-উপাচার্য সুলতান-উল-ইসলাম, উপ-উপাচার্য প্রফেসর হুমায়ুন কবীর, উলামা কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মাওলানা আবদুল গণি প্রমুখ উপস্থিত হয়েছিলেন।

অনুষ্ঠানমঞ্চে নবনির্বাচিত ১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামাল হোসেন, ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল ইসলাম, ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান, ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুজ্জামান, ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান, ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জানে আলম খান, ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাসেল জামান, ১০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্বাস আলী সরদার, ১১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু বাক্কার কিনু, ১২নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল মোমিন, ১৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন, ১৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুস সোবহান, ১৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেলাল আহম্মেদ, ১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহাদত আলী শাহু, ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম, ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ২০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম, ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযীম, ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল হামিদ সরকার টেকন, ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহাতাব হোসেন চৌধুরী, ২৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরমান আলী, ২৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলিফ-আল-মাহামুদ লুকেন, ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকতারুজ্জামান কোয়েল, ২৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান, ২৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল হাসান বাচ্চু, ২৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাহের হোসেন, ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলাউদ্দিন, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর তাহেরা খাতুন, শিউলি, সেবুন নেসা, আলতাফুন নেছা, সামসুন নাহার, মমতাজ মহল, সুলতানা আহমেদ সাগরিকা, নাদিরা বেগম, কাউন্সিলর ফেরদৌসী, সুলতানা রাজিয়া উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, মহানগরীর বিশিষ্টজন ও নাগরিকবৃন্দ, বিভিন্ন সরকারি অফিসের প্রধানগণ, চিকিৎসক নেতৃবৃন্দ, ইন্জিনিয়ার, আইনজীবীবৃন্দ, পরিবহন, ব্যবসায়িক, সামাজিক, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, স্কুল ও কলেজের প্রধানগণ সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ২১ জুন ২০২৩ তারিখে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন নৌকা প্রতীকে ১ লাখ ৬০ হাজার ২৯০ ভোট পেয়ে আবারো নির্বাচিত হন। গত ৩ জুলাই রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে শপথবাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী। এরআগে ২০০৮ থেকে ২০১৩ প্রথম মেয়াদে এবং ২০১৮ থেকে ২০২৩ সালের মে মাস পর্যন্ত দ্বিতীয় মেয়াদে রাসিকের মেয়র ছিলেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ