রাজশাহীতে ঢিলেঢালা ‘লকডাউনে’ বাড়ছে লোকসমাগম

আপডেট: আগস্ট ৩, ২০২১, ১০:৪৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী নগরী ও সকল উপজেলায় কঠোর বিধিনিষেধের ১২তম দিনে ঢিলেঢালা ‘লকডাউনে’ বাড়ছে লোকসমাগম।
মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) নগরীর প্রধান সড়কগুলোতে চেকপোস্ট থাকলেও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ছিলো স্বল্প পরিসরে। ঢিলেঢালা লকডাউনে সাধারণ মানুষের চলাচলের সাথে ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায় যানজট। নগরীর সাহেববাজার, আলুপট্টি, লক্ষ¥ীপুর, রেলগেটসহ কয়েকটি পয়েন্ট গিয়ে দেখা যায়, বিধি-নিষেধের কোনো বালাই নেই। এর বাইরে নগরীর প্রবেশদ্বার কাটাখালি, বেলপুকুর, কাশিয়াডাঙ্গা, এলাকায় পুলিশের চেকপোস্ট থাকলেও বিভিন্ন অজুহাতে মানুষ বাইরে বের হচ্ছে। আগের চেয়ে কাঁচাবাজার ও রাস্তায় মানুষের চলাচল অনেক বেশি। এছাড়াও প্রধান সড়কগুলোতে দেখা গেছে পণ্যবাহী গাড়ির সাথে বেড়েছে অন্যান্য গাড়ি চলাচল। সকাল থেকে লকডাউনের ফলে মহানগরীতে ওষুধ ও নিত্যপণ্যের প্রয়োজনীয় দোকান ছাড়া শপিংমলসহ সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। তবে কিছু দোকান মালিক দোকান বন্ধ রেখে দোকানের সামনে অবস্থান করছেন এবং ক্রেতা আসলে তাদের চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পণ্য-সামগ্রী সরবরাহ করছেন।
অন্যদিকে লকডাউনের দিন যতই বাড়ছে মহানগরীতে লোক সংখ্যা ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে লোক মহানগরীতে চলাচল করছে। চলছে প্রচুর সংখ্যক রিক্সা-অটোরিক্সা ও মোটরসাইকেলসহ বেশকিছু ব্যক্তিগত যানবাহন চলাচল করছে। বেশিরভাগ মানুষ রাস্তায় বের হলেও মুখে মাস্ক পরছেন না। কেউবা আবার বুক পকেটে মাস্ক রেখে ঘুরছেন। কেবল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের আসতে দেখলেই জরিমানা এড়াতে তড়িঘড়ি করে মুখে মাস্ক পরছেন।
রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক বলেন, লকডাউনে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের পাশাপাশি করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণও করা হচ্ছে। তবে আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে। এর বিকল্প নেই। পাশাপাশি টিকাগ্রহণ করতে হবে।