রাজ্যসভার সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা মিঠুন চক্রবর্তীর

আপডেট: ডিসেম্বর ২৭, ২০১৬, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



জল্পনা চলছিল বহুদিন ধরেই৷ সোমবার তাতে ইতি পড়ল৷ আনুষ্ঠানিকভাবে রাজ্যসভার সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করলেন মিঠুন চক্রবর্তী৷ মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রায় দেড় বছর আগেই ইস্তফা দিলেন তিনি৷ স্বাস্থ্যের কারণ দেখিয়েই এই দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চাইলেন তৃণমূল সাংসদ৷
বহুদিন ধরেই জনপ্রিয় এই অভিনেতা ছিলেন লোকচক্ষুর অন্তরালে৷ শোনা যাচ্ছিল, গুরুতর শারীরিক অসুস্থতার কারণে চিকিৎসা চলছে তাঁর৷ সেজন্য মার্কিন মুলুক থেকেও সম্প্রতি ঘুরে এসেছেন বলে শোনা যায়৷ গত বছর ফেব্রুয়ারিতে তৃণমূল কংগ্রেস মনোনীত সাংসদ হিসেবে মিঠুন চক্রবর্তীর নাম সুপারিশ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ চার মাস পরে সাংসদ হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন এই সফল অভিনেতা৷ যদিও গত দু’বছরে মাত্র তিনদিন সংসদে যোগ দিয়েছিলেন মিঠুন৷
ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর,অসুস্থতার জন্য সাম্প্রতিক  কোনও দলীয় অনুষ্ঠানেও দেখা যাচ্ছিল না জাতীয় পুরস্কার জয়ী অভিনেতাকে৷ এমনকী এ বছর দলের হয়ে বিধানসভার নির্বাচনী প্রচারেও দেখা যায়নি তাঁকে৷ তাঁর খবরও হাতে গোনা দলের কয়েকজন শীর্ষ নেতা ছাড়া কারও কাছে ছিল না৷সিনেদুনিয়াতেও ইদানিং বড় একটা দেখা যাচ্ছিল না তাঁকে৷ গত ২৬ নভেম্বর কলকাতায় এক জনসভায় মুখ্যমন্ত্রীকে অবশ্য অভিযোগ করতে শোনা যায়, অসহিষ্ণুতা প্রসঙ্গে কেন্দ্রের বিরোধিতা করায় তাঁর সঙ্গে মিঠুনকে কথা বলতে দিচ্ছে না সিবিআই, ইডি-র মতো বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সংস্থা৷ এরপরই খোদ অভিনেতার থেকে এল এই সিদ্ধান্ত৷
রাজনীতি থেকে তিনি সরে দাঁড়ানোর ইচ্ছে আগেই প্রকাশ করেছিলেন৷ দলকে এই মর্মে চিঠিও দিয়েছিলেন৷ এদিন সেই সিদ্ধান্ত জানানোর পর দলীয় সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়ানের প্রতিক্রিয়া, তৃণমূলের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক আগের মতোই থাকবে৷ তাঁর দ্রুত সুস্থতাও কামনা করা হয়েছে দলের তরফে৷- সংবাদ প্রতিদিন

রাজ্যসভার সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা মিঠুন চক্রবর্তীর
সোনার দেশ ডেস্ক
জল্পনা চলছিল বহুদিন ধরেই৷ সোমবার তাতে ইতি পড়ল৷ আনুষ্ঠানিকভাবে রাজ্যসভার সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করলেন মিঠুন চক্রবর্তী৷ মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রায় দেড় বছর আগেই ইস্তফা দিলেন তিনি৷ স্বাস্থ্যের কারণ দেখিয়েই এই দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চাইলেন তৃণমূল সাংসদ৷
বহুদিন ধরেই জনপ্রিয় এই অভিনেতা ছিলেন লোকচক্ষুর অন্তরালে৷ শোনা যাচ্ছিল, গুরুতর শারীরিক অসুস্থতার কারণে চিকিৎসা চলছে তাঁর৷ সেজন্য মার্কিন মুলুক থেকেও সম্প্রতি ঘুরে এসেছেন বলে শোনা যায়৷ গত বছর ফেব্রুয়ারিতে তৃণমূল কংগ্রেস মনোনীত সাংসদ হিসেবে মিঠুন চক্রবর্তীর নাম সুপারিশ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ চার মাস পরে সাংসদ হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন এই সফল অভিনেতা৷ যদিও গত দু’বছরে মাত্র তিনদিন সংসদে যোগ দিয়েছিলেন মিঠুন৷
ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর,অসুস্থতার জন্য সাম্প্রতিক  কোনও দলীয় অনুষ্ঠানেও দেখা যাচ্ছিল না জাতীয় পুরস্কার জয়ী অভিনেতাকে৷ এমনকী এ বছর দলের হয়ে বিধানসভার নির্বাচনী প্রচারেও দেখা যায়নি তাঁকে৷ তাঁর খবরও হাতে গোনা দলের কয়েকজন শীর্ষ নেতা ছাড়া কারও কাছে ছিল না৷সিনেদুনিয়াতেও ইদানিং বড় একটা দেখা যাচ্ছিল না তাঁকে৷ গত ২৬ নভেম্বর কলকাতায় এক জনসভায় মুখ্যমন্ত্রীকে অবশ্য অভিযোগ করতে শোনা যায়, অসহিষ্ণুতা প্রসঙ্গে কেন্দ্রের বিরোধিতা করায় তাঁর সঙ্গে মিঠুনকে কথা বলতে দিচ্ছে না সিবিআই, ইডি-র মতো বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সংস্থা৷ এরপরই খোদ অভিনেতার থেকে এল এই সিদ্ধান্ত৷
রাজনীতি থেকে তিনি সরে দাঁড়ানোর ইচ্ছে আগেই প্রকাশ করেছিলেন৷ দলকে এই মর্মে চিঠিও দিয়েছিলেন৷ এদিন সেই সিদ্ধান্ত জানানোর পর দলীয় সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়ানের প্রতিক্রিয়া, তৃণমূলের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক আগের মতোই থাকবে৷ তাঁর দ্রুত সুস্থতাও কামনা করা হয়েছে দলের তরফে৷- সংবাদ প্রতিদিন