শৃঙ্খলা ভঙ্গ : কলেজিয়েট স্কুলের ছয় শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার

আপডেট: আগস্ট ১২, ২০২২, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধূমপান, মারামারি, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজসহ বিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ছয় শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছেন রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) কলেজিয়েট স্কুলের প্রধান শিক্ষক ড. নূরজাহান বেগম স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য জানানো হয়।
নোটিশে রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলা হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধূমপান, মারামারি, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও বিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে ছয় ছাত্রকে চলতি বছরের ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত বহিষ্কার করা হলো। একই সঙ্গে বিদ্যালয়ের অন্য ছাত্রদেরকেও সতর্ক করা হয়েছে।

নোটিশে জানানো হয়, বিদ্যালয়ে মারামারি ও অশ্লীল ভাষা ব্যবহারের অপরাধে চতুর্থ শ্রেণির তিন ছাত্র, ধূমপানের অপরাধে সপ্তম ও নবম শ্রেণির দুই ছাত্র এবং মারামারির অপরাধে পঞ্চম শ্রেণির আরও এক ছাত্রকে সাময়িক বহিষ্কার করা হলো।

এ বিষয়ে কলেজিয়েট স্কুলের সহকারী শিক্ষক আবুল হাশেম জানান, এই ছয় শিক্ষার্থীকে একাধিকবার নিষেধ করার পরেও কথা শুনছিলো না। ঐতিহ্যবাহী এই স্কুলের একটি সুনাম আছে। এইটুকু ছেলে স্কুলে এসে সরাসরি ধূমপান করে। এদের দেখে অন্যরা কী শিখবে?

তিনি আরও বলেন, কয়েকদিন আগে একজন আরেকজন ছেলের পেনিসে লাথি মেরেছে। রক্ত বের হয়ে বিব্রতকর অবস্থা। তাকেও সাসপেন্ড করা হয়েছে। আমরা খুব বিপদে আছি। আমরা তো ওদের মারধর বা শাসনও করতে পারি না। আগে শাসন ছিল, ছেলেরা ভয়ে কিছু করতো না। এখন সাসপেন্ড করা ছাড়া উপায় নেই।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক ড. নূরজাহান বেগম বলেন, স্কুলে কোনো শিক্ষার্থীকে মারধর করে শাসনের সুযোগ নেই। সব সময় তাদের বুঝিয়ে সংশোধন করা হয়। কিন্তু এই ছয় ছাত্র এতটাই অন্যায় করেছে যে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নিয়ে পারা যায়নি। মারধর করা তিন ছাত্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে ভুক্তভোগী ছাত্রের অভিভাবকই আইনের আশ্রয় নিতে চাচ্ছিলেন। ধূমপান করা দু’জন এবং অন্য আরেকজনের অপরাধও গুরুতর ছিলো।

প্রধান শিক্ষক বলেন, প্রতিদিনই ৭-৮টি মারামারির ঘটনা ঘটে। সবাইকে সতর্ক করার জন্য স্কুলের শৃঙ্খলা কমিটি ছয়জনের বিরুদ্ধে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত তারা ক্লাসে অংশ নিতে পারবেন না। তবে পরীক্ষা দিতে পারবেন।