সরকারি কর্মচারীদের জন্য ২৫শো ফ্ল্যাট উদ্বোধন

আপডেট: আগস্ট ৩, ২০২১, ২:২২ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ঢাকায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য নবনির্মিত আড়াই হাজার ফ্ল্যাট, ‘মাদারীপুরে সমন্বিত অফিস ভবন’ এবং তেজগাঁওয়ে আটতলার দু’টি আবাসিক ভবন উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই অনুষ্ঠান থেকে রাজধানীর মিরপুরে বস্তিবাসীদের জন্য নির্মিত ভাড়াভিত্তিক ৩০০ ফ্ল্যাট হস্তান্তর করেন তিনি।
মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মুজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় নির্মিত এসব উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
৫টি প্রকল্পের আওতায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য আজিমপুর সরকারি কলোনি, মিরপুর ৬ নম্বর সেকশন, মালিবাগ এবং মতিঝিলে ২ হাজার ৪৭৪টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করে।
এর মধ্যে আজিমপুর সরকারি কলোনিতে ১৭টি ২০ তলা ভবনে ১ হাজার ২৯২টি ফ্ল্যাট, মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনে ২৮৮টি ফ্ল্যাট, মালিবাগে চারটি ২০ তলা ভবনে ৪৫৬টি ফ্ল্যাট এবং মতিঝিলে পাঁচটি ২০ তলা ভবনে ৩৮০টি ফ্ল্যাট রয়েছে।
এক হাজার বর্গফুটের প্রতিটি ফ্লাটে এবং ভবন এলাকায় মুক্ত বাতাস চলাচল নিশ্চিতকরণে ভেন্টিলেটরসহ ক্রস ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বাথরুম ও টয়লেট আলাদা নির্মাণ করে সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করা হয়েছে। অগ্নিনির্বাপণ সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
প্রায় ৭০ ভাগ উন্মুক্ত স্থান সম্বলিত সরকারি এ হাউসিং প্রকল্পগুলোতে খেলার মাঠ, সবুজায়ন, ওয়াটার বডি বা পুকুর, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ ব্যবস্থা এবং সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (এসটিপি) এর ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। নবায়নযোগ্য জ্বালানি হিসেবে সোলার প্যানেল ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী বৈদ্যুতিক ফিটিংস যন্ত্রপাতি লাগানো হয়েছে। প্রকল্পগুলো পরিবেশবান্ধবের মাপকাঠিতে সবুজ প্রকল্প হিসেবে গড়ে উঠেছে।
এছাড়া উদ্বোধনের তালিকায় রয়েছে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আটতলার দু’টি আবাসিক ভবন। এগুলো প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কর্মরত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
বস্তিবাসীদের জন্য ১৪৯ কোটি টাকা ব্যয়ে মিরপুরের ১১ নম্বর সেকশনের বাউনিয়া বেড়িবাঁধ এলাকায় ছয় বিঘা জমির ওপর ১৪তলার পাঁচটি ভবনে ৫৩৩টি আধুনিক ফ্ল্যাট নির্মাণ করেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার। বস্তির ঝুপড়ি ঘরের সমান বা তার চেয়েও কম ভাড়ায় এসব আধুনিক ফ্ল্যাট পাচ্ছেন বস্তিবাসীরা।
এসব ফ্ল্যাটের মধ্যে প্রথম দফায় ৩০০টি ফ্ল্যাট হস্তান্তর করা হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় বাকি ২৩৩টি ফ্ল্যাট হস্তান্তর করা হবে।
৬২০ থেকে ৭১৯ বর্গফুট আয়তনের প্রতিটি ফ্ল্যাটে রয়েছে দু’টি করে বেডরুম, একটি বারান্দা, একটি ড্রয়িং রুম, বেসিন, রান্নাঘর ও দু’টি বাথরুম। ফ্ল্যাটের দুই পাশে ফাঁকা জায়গা। ফ্ল্যাটগুলো টাইলস করা।
বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপকারভোগী ছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ ও গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকারসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ