আপডেট: অক্টোবর ২০, ২০১৬, ১০:৩৭ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
বাংলাদেশের স্পিনে নাকাল ইংল্যান্ড। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনই দুই স্পিনারের হাতে একে একে উইকেট হারিয়ে সাজঘরের পথ দেখতে হয়েছে ইংল্যান্ডের বিশাল ব্যাটিং লাইনআপকে। অভিষিক্ত মেহেদী হাসান মিরাজ একাই নিলেন ৫ উইকেট। বাকি দুই উইকেট গেলো সাকিব-আল হাসানের ঝুলিতে।

 
ইংলিশদের বিপক্ষে টেস্টের প্রথম দিন মোট আটজন বোলার ব্যাবহার করেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। এর মধ্যে শফিউল ইসলাম আর কামরুল ইসলাম রাব্বি ছাড়া বাকি ৬ জনই স্পিনার। সাকিব-মিরাজ ছাড়া বাকিরা উইকেট না পেলেও দুর্দান্ত বোলিং করেছেন।

 
ইংল্যান্ড ভেবেছিল, স্পিনই হবে বাংলাদেশের বোলিংয়ের মূল অস্ত্র; কিন্তু এতটা! ভাবতেই পারেন নি ইংলিশ ব্যাটসম্যান মঈন আলি। ইংল্যান্ডের হয়ে দিনের সেরা পারফরমার এসেছিলেন সংবাদ সম্মেলনে। দিন শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে উল্টো স্পিন দিয়ে বাংলাদেশকে হুমকি দিয়ে রাখলেন তিনি। বললেন, তাদেরও বেশ কয়েকজন স্পিনার আছেন। তাদেরকে মোকাবেলা করতে হবে স্বাগতিকদের।

 
দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিকরা মঈন আলিকে প্রশ্ন করেছিলেন, স্পিনাররা কী বেশি সুবিধা পেয়েছে? জবাবে আলি প্রথমে বাংলাদেশের বোলারদের প্রশংসা করলেন। এরপর বললেন, ‘তারা সত্যিই দুর্দান্ত বোলিং করেছে। খুবই নিখুঁত ছিল বাংলাদেশের স্পিনারদের বোলিং। আমি মনে করি, এটা আমাদের জন্যও খুব উপকারী হবে। কারণ আমাদের হাতে রয়েছে গ্যারেথ ব্যাটি, আদিল রশিদ এবং আমি নিজে। আশা করি আমরাও স্পিন দিয়ে স্বাগতিকদের মত বোলিং করতে পারবো।’

 
উইকেটও খুব বেশি কঠিন ছিল বলে মনে করেন মঈন আলি। তিনি বলেন, ‘এই উইকেটে রান করা খুবই কঠিন ছিল। আমাদের ওপর চাপও ছিল এই উইকেট থেকে রান বের করে আনা। সত্যি কথা বলতে কী, সামনে শীত মৌসুম। উপমহাদেশের মাটিতে আরও অনেক খেলতে হবে। সুতরাং, এ ধরনের চাপের মুখে নিজেদের মানিয়েই নিতে হবে এখন আমাদের। আরব আমিরাতে অনেক ভুল করেছি। আশা করছি সেই ভুলগুলো আর হবে না আমার।’
মূলতঃ ইংল্যান্ডের লেড স্পিনার আদিল রশিদ বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য বেশ চ্যালেঞ্জিং। ওয়ানডে সিরিজেই তিনি নিজেকে প্রমাণ করেছেন। মঈন আলি নিজেও দারুন বোলিং করেছেন। প্রায় ১২ বছর বিরতি দিয়ে ফেরা গ্যারেথ ব্যাটিও ভালো স্পিন করছেন এখন।-জাগোনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ